দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর শহরের বাঙ্গীবেচা ব্রীজ রক্ষার দাবীতে ওই ব্রীজের উপর দিয়ে চলাচল করা ১৩ গ্রামের বাসিন্দারা শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে।

গতকাল সোমবার সকালে মাঝাডাঙ্গা গ্রাম থেকে হাজারো মানুষের অংশে বিক্ষোভ মিছিল দিনাজপুরের কালিতলা প্রেসক্লাবের সামনে এসে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভ মিছিলটি দিনাজপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে গিয়ে অপর একটি মানববন্ধনের আয়োজন করে।

মানববন্ধনে মাঝাডাঙ্গা, নতুনপাড়া, নবীনপাড়া, তেলিপাড়া, খালপাড়া, চকচকা, গোসাইপুর, মালঝাড়, উত্তরপাড়া, পূর্বপাড়া, মোল্লাপাড়া, সর্দারপাড়া, জুম্মাপাড়ার সহশ্রাধিক মানুষ অংশ নেন। এসময় জেলা প্রশাসক বরাবরে ১৩ গ্রামের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এর আগে দিনাজপুর কোতয়ালী থানার ওসি বরাবর একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

মানববন্ধন চলাকালীন সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ শফি রুবেল, জেলা সিপিবির সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান বাদল ও মাঝাডাঙ্গা ১৩ মসজিদের সমন্বয়ে গঠিত ঈদগাহ মাঠের সভাপতি মোঃ ইয়াসিন আলীসহ প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দিনাজপুর শহরের বাঙ্গীবেচা ব্রীজের কাছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে সৃষ্ট গর্তে পড়ে গত ৪ বছরে শহরের ৯ জন শিশু, কিশোর ও বয়স্ক ব্যক্তির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। বালু উত্তোলনকারীরা এতই শক্তিশালী যে, তারা আমাদের কোন কথাই শোনে না।

আমরা প্রতিবাদ করলে তারা আমাদেরকে হুমকি দেয়। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে নদীর মাঝখানে সৃষ্টি হয়েছে ৮০ থেকে ১০০ ফুটের গর্তে। এই গর্তে যে কেউ পড়লে আর উঠতে পারবে না। আমরা তাদেরকে অনেকবার নিষেধ করেছি, তারা আমাদের কথায় কোনভাবে কর্ণপাত করেনি। বরং তারা আমাদেরকে ব্রীজ পার হতে দেবে না বলে হুমকি দেয়। এছাড়াও তারা বলে, এব্যাপারে বেশি বাড়াবাড়ি করলে পা কেটে দেয়া হবে।

তারা আরও বলেন, বাঙ্গীবেচা ব্রীজের কাছে শহরের লালবাগ এলাকার বাসিন্দা জনৈক মোঃ মাহাফুজ দীর্ঘদিন ধরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করছে। এই বাঙ্গীবেচা ব্রীজের উপর দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১০ লক্ষ মানুষ যাতায়াত করে। এছাড়াও কয়েক হাজার ছোট বড় যানবাহন চলাচল করে। এই ব্রীজটির উপর দিয়ে পাশ্ববর্তী বোচাগঞ্জ ও কাহারোল উপজেলায় মানুষ সহজে যাতায়াত করতে পারে। অথচ আজ বালু খেকোদের কারণে ব্রীজটি হুমকির মুখে পড়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য