মোঃ জাকির হোসেন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) সংবাদদাতা ॥ উত্তরবঙ্গের সর্ববৃহৎ ও দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মিলাদুন্নবীর শোভাযাত্রা নীলফামারীর সৈয়দপুরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১০ নভেম্বর রবিবার সকাল ১০ টায় শহরের রেলওয়ে মাঠ থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়ে গেট বাজার, রেলওয়ে কারখানা, বাঁশবাড়ি আমিন মোড়, হানিফ মোড়, রেলওয়ে হাসপাতাল কলিম মোড় হয়ে শহীদ ডাঃ জিকরুল হক রোড, বঙ্গবন্ধু চত্বর, শেরে বাংলা সড়ক দিয়ে আবারও রেলওয়ে মাঠে এসে সমাপ্ত হয়।

দীর্ঘ ৩ কিলোমিটার ব্যাপ্তির শোভাযাত্রাটি প্রায় ১ ঘন্টাব্যাপী শহর প্রদক্ষিণ করে। এতে শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে মসজিদের মুসল্লী, খানকাহ, মাদরাসাসহ বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনের ব্যানারে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। সকাল ৮ টা থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন কলেমা খচিত ব্যানার, ফেস্টুন, পতাকা নিয়ে রেলওয়ে মাঠে উপস্থিত হতে থাকেন। সকল বয়সের মানুষের সমাগমে রেলওয়ে মাঠ জনসমুদ্রে পরিণত হয়।

শোভাযাত্রা শেষে রেলওয়ে মাঠে আয়োজিত আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভারত থেকে আগত পীর সৈয়দ আহমেদ আল-জামাল আশরাফী আল জি¦লানী।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত নীলফামারী জেলা শাখা সভাপতি পীর গোলাম জি¦লানী আল কাদরী, সাধারণ সম্পাদক গোলজার আহমেদ আশরাফী, আঞ্জুমানে গাউসিয়া সৈয়দপুর শাখা সভাপতি হাজী নুর উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক হাজী তসলিম, আফতাব আলম জুবায়ের এমাদী, নাদিম আশরাফী, সৈয়দপুর পৌরসভার কাউন্সিলর শাহিন আকতার, এরশাদ হোসেন পাপ্পু, জোবায়দুল ইসলাম মিন্টু, কাজী হায়দার আলী প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন আহলে সুন্নাত ওয়াল জামাত সৈয়দপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক খালিদ আজম আশরাফী।

মিলাদুন্নবীর শোভাযাত্রা সফলভাবে পালনে সৈয়দপুর থানা পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। প্রায় প্রতিটি মোড়ে মোড়ে এবং সমাবেশ স্থল রেলওয়ে মাঠে বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়। সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহজাহান নিজে উপস্থিত থেকে সার্বিক আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করেন। শোভাযাত্রা শুরুর প্রথম থেকে শেষাবধী তিনি অবস্থান করেন।

উল্লেখ্য, প্রতিবছরই সৈয়দপুরে মিলাদুন্নবীর শোভাযাত্রা ব্যাপক আয়োজনের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়ে থাকে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য