অস্ট্রেলিয়ার নিউ সাউথ ওয়েলস ও কুইন্সল্যান্ডজুড়ে ছড়িয়ে পড়া শতাধিক দাবানলে অন্তত তিন জনের মৃত্যু ও দেড়শ বাড়ি পুড়ে ছাই হয়েছে।

শুক্রবার দাবানলের কারণে জরুরি অবস্থা জারির পর রোববার তৃতীয় দিনেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে রয়ে গেছে।

আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই দুই রাজ্যজুড়ে ১৩০০ দমকল কর্মী কাজ করছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

পরিস্থিতি মোকাবিলায় কয়েকশ বেসামরিক নাগরিকও স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করছে।

তাদের সাহায্য করতে সামরিক বাহিনীকেও নামানো হতে পারে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন।

“যারা প্রাণ হারিয়েছেন আজ আমি শুধু তাদের ও তাদের পরিবারের কথা ভাবছি,” বলেছেন তিনি।

কুইন্সল্যান্ডে কয়েক হাজার লোক শনিবার রাতটি আশ্রয় কেন্দ্রে কাটিয়েছে। তাদের বাড়িতে ফিরে যাওয়া নিরাপদ হবে কিনা, কর্মকর্তারা তা যাচাই করে দেখছেন বলে বিবিসি জানিয়েছে।

নিউ সাউথ ওয়েলসে দেড়শরও বেশি বাড়ি পুড়ে গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন দমকল কর্মকর্তারা।

শুক্রবার আগুনে পুড়ে যাওয়া এলাকা পরিষ্কার করার সময় গ্লেন ইন্সে পুড়ে যাওয়া একটি গাড়িতে এক ব্যক্তির মৃতদেহ পাওয়া যায়। একই শহরে মারাত্মক দগ্ধ অবস্থায় এক নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়। এই শহরটি সিডনি থেকে প্রায় ৫৫০ কিলোমিটার উত্তরে।

শনিবার নিউ সাউথ ওয়েলস পুলিশ সিডনি থেকে প্রায় ৩০০ কিলোমিটার উত্তরে তারি শহরে পুড়ে যাওয়া একটি বাড়িতে আরেক ব্যক্তির মৃতদেহ পায়।

শনিবার রাতের ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়। কিন্তু সপ্তাহের মাঝামাঝি উচ্চ তাপমাত্রা, কম জলীয়বাষ্প ও তীব্র বাতাস বয়ে যাবে বলে আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে। এতে দাবানল আরও জোরদার হয়ে নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়বে বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য