দিনাজপুর সংবাদাতাঃ ৭ নভেম্বর দিনাজপুর আদালত প্রাঙ্গনে আনুমানিক বিকাল ৪টার সময় ছেলে-মেয়ের বিয়েকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয় এবং সংঘর্ষে মেয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

ঘটনার প্রত্যক্ষ সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ অক্টোবর/২০১৯ তারিখে দিনাজপুর তেরো মাইল গড়েয়ার ভাটগাঁ গ্রামের ফজির উদ্দিন এর পুত্র লাইমুন (২৬) এর সাথে একই এলাকার [অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় নাম ঠিকানা গোপন রাখা হলো] এক মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক থাকার কারণে উভয় পরিবারের সম্মতিক্রমে স্থানীয় চেয়ারম্যান এবং মেম্বার এর উপস্থিতিতে সেই মেয়েকে ৭০ হাজার টাকা মোহরানা এবং ১০ কাঠা জমি দেওয়ার স্বীকৃতি দিয়ে এফিডেভিট মূলে ও কাজীর মাধ্যমে বিবাহ সম্পন্ন হওয়ার দিন ধার্য্য হয়।

ছেলের বাবা মেয়েকে জমি রেজিষ্ট্রী দিতে গেলে বেরিয়ে আসে মেয়ের প্রকৃত বয়স ১৬ বছর। অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার কারণেই জমি রেজিষ্ট্রী না হওয়ার কারণে জমি দিতে পারেন নি বলে জানান ছেলের বাবা মোঃ ফজির উদ্দিন। এদিকে মেয়ে ছেলের সাথে অবস্থান করাকালীন মেয়ের পরিবার ছেলের বিরুদ্ধে কাহারোল থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন; যার মামলা নং ০৭/১০, তারিখ-২৩/১০/২০১৯ ইং। গত ০৬ নভেম্বর রাত ১১টায় কাহারোল থানার এস,আই সুভাস চন্দ্র আসামী মোঃ লাইমুনকে আটক করে আদালতে পাঠায়।

৭ নভেম্বর আসামী লাইমুন এর পরিবার ছেলের বউকে সঙ্গে নিয়ে আদালতে জবানবন্দী দিয়ে ছেলেকে জামিনের চেষ্টা করলে বিজ্ঞ আদালত তার জামিন নামঞ্জুর করায় ছেলের পরিবারের সদস্যবৃন্দ ও মেয়ের পরিবারের সদস্যদের সংঘর্ষ বাঁধে এসময়ে মেয়েটিকেও আঘাত লাগায় মেয়েটি ঘটনাস্থলেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।

অতঃপর কোর্টের দ্বায়ীত্বরত কর্মকর্তার নির্দেশে আদালত প্রাঙ্গনের পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করে এবং মেয়েকে পরিবারের সাথে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয়। কোর্ট ইন্সপেক্টর জানান, আসামীর জামিন নামঞ্জুর হওয়ায় উভয় পরিবারের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়, তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও শান্ত করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য