দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি ও সিএমসি কর্মরত শ্রমিকদের ওপর হয়রানি, জরিমানা ও ছাটাইয়ের প্রতিবাদে কর্মবিরতি পালন করেছে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকেরা। আজ সোমবার দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যে ৬টা পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করেন তারা। এ সময় কয়লা উত্তোলন পুরোপুরি বন্ধ থাকে।

বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মোঃ রবিউল ইসলাম জানান, দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের পরে চলতি বছরের ১৪ জুলাই চীনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এক্সএমসি ও সিএমসি’র বোর্ড রুমে ত্রি-পক্ষীয় চুক্তি সম্পাদিত হয়। ওই চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন করে ইতিমধ্যে তারা দু’জন শ্রমিককে ছাটাই করেছে। দশ জন শ্রমিককে ১০হাজার টাকা করে জরিমানা করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। এছাড়া আরও শতাধিক শ্রমিককে ৫শ’ থেকে ৮শ’ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

ছাটাইকৃত শ্রমিক দু’জন হলেন হলেন- ফুলবাড়ী উপজেলার বারোকোনা গ্রামের শাহিন ও মহেশপুর গ্রামের আলতাব হোসেন। তাদেরকে ২ মাস আগে চাকরিচ্যুত করা হয়।

এদিকে, যাদের দশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে, তারা হলেন- পার্বতীপুরের তেলিপাড়া গ্রামের আরিফুল ইসলাম, আশরাফুল হক, পাতরাপাড়া গ্রামের মেরাজ উদ্দীন, দলাইকোটা গ্রামের রবিউল ইসলাম, আফতাবুর রহমান, শেরপুর গ্রামের মাহমুদুন নবী, ঢেরেরহাটের উজ্জল রায়, দূর্গাপুরের গঙ্গা চন্দ্র রায় ও ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের নুর ইসলাম। শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আবু সুফিয়ান অভিযোগ করেন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান শ্রমিকদের সাথে সম্পাদিত চুক্তি বার বার লঙ্ঘন করে শ্রমিক অ-সন্তোষ সৃষ্টি করে। আমরা এর স্থায়ী সমাধান চাই।

এ ঘটনায় আজ বেলা সাড়ে ৩টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের সাথে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ আলোচনায় বসেন। তারা আগামী বুধবার উদ্ভূত পরিস্থিতি সমাধানের লক্ষ্যে ত্রি-পক্ষীয় বৈঠকে (আন্দোলনরত শ্রমিক-খনি কর্তৃপক্ষ ও চীনা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান) সিদ্ধান্তের আশ্বাস দেয়ায় শ্রমিকরা কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে সন্ধ্যে ৬টায় পূনরায় কাজে যোগদেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য