কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার থানাহাট ইউনিয়নে এক মাদ্রাসাছাত্রকে ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার (৪ নভেম্বর) সকালে উপজেলার থানাহাট ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের পুটিমারী বহরেরহাট এলাকায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। এ ঘটনায় রেজাউল ইসলাম নামে একজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে এলাকাবাসী।

চিলমারী থানার অফিসার ইন চার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত মাদ্রাসাছাত্রের নাম শাকিল (৮)। সে একই ইউনিয়নের হাটিথানা বাঁধের রাস্তা এলাকার আব্দুল কাদের-কহিনূর বেগম দম্পতির ছেলে। সে একই এলাকার আলহাজ মরহুম রজব উদ্দিন নূরানী ও হাফেজিয়া মাদ্রাসার ছাত্র।

এদিকে অভিযুক্ত রেজাউল ইসলাম পুটিমারী বহরেরভিটা গ্রামের মৃত শামসুল হকের ছেলে। সে ৮-১০ বছর ধরে অনেকটা মানসিক ভারসাম্যহীন বলে জানান এলাকাবাসী।

স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিনের মতো আজ সোমবার সকালে মাদ্রাসায় যায় শাকিল। সকাল ৯টার দিকে মাদ্রাসা থেকে বের হয় সে। ওই সময় মাদ্রাসার সামনে দিয়ে রেজাউল যাচ্ছিলো। এ সময় শাকিল রেজাউলকে বিরক্ত করার চেষ্টা চালায়। একপর্যায়ে রেজাউল হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে শাকিলকে ধরে আছাড় মারেন। পরে ইট দিয়ে শাকিলের মাথায় সজোরে আঘাত করেন। সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয়রা রেজাউলকে আটক করে এবং শাকিলকে হাসপাতালে পাঠায়। তবে হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা শাকিলকে মৃত ঘোষণা করেন।

থানাহাট ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মাহাবুবুর রশিদ বিপ্লব জানান, অভিযুক্ত রেজাউল ৮-১০ বছর ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন। এর আগেও একাধিকবার সে শিশুসহ স্থানীয়দের ওপর আক্রমণ করেছিল। স্থানীয়দের দাবি, রেজাউলকে যেন সরকারি ব্যবস্থায় আটক রাখা হয়। না হলে অন্যরাও তার আক্রমণের শিকার হতে পারে।

চিলমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমিনুল ইসলাম জানান, ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত রেজাউলকে আটক করা হয়েছে। সে মানসিক ভারসাম্যহীন কিনা নিশ্চিত হতে ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে। এ ঘটনায় চিলমারী থানায় একটি হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান ওসি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য