শরিয়ার বিধানদাতা মুফতিই জড়ালেন বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্কে। এতে ধরাও পড়েন তিনি। এজন্য ওই মুফতিকে ২৮ বার বেত্রাঘাত করা হয়েছে। এই ঘটনা ঘটেছে ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশে। খবর বিবিসির।

ঘটনার বিস্তারিত সম্পর্কে জানা যায়, আচেহ প্রদেশে কঠোর শরিয়া আইনের খসড়া করতে সহায়তা দেয় আচেহ ওলামা কাউন্সিল (এমপিইউ)। সেই কাউন্সিলের একজন ইসলামি মুফতি মুখলিস বিন মোহাম্মদ (৪৬)। তিনিও ওই প্রদেশটিতে কঠোর শরিয়া আইনের খসড়া তৈরিতে সহায়তা করেন।

জানা যায়, মুফতি মুখলিস বিন মোহাম্মদ আচেহ প্রদেশের বেসার জেলায় বসবাস করেন। গত সেপ্টেম্বর মাসে মুখলিস বিনকে দেশটির কর্মকর্তারা এক বিবাহিত নারীসহ একটি পর্যটন উপকূলের পার্ক করা একটি গাড়ি থেকে আটক করে। তিনি ওই নারীর সঙ্গে ‘পরকীয়ায়’ জড়িত ছিলেন।

এর জেরে গত বৃহস্পতিবার মুফতি মুখলিস বিন ও ওই নারীকে বেত্রাঘাত করা হয়েছে। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুফতি মুখলিস বিনকে ২৮ বার এবং ওই নারীকে ২৩টি বেত্রাঘাত করা হয়।

বেসারের ডেপুটি মেয়র হুসাইনি ওয়াহাব বলেন, এটা আল্লাহর আইন। ওলামা কাউন্সিলের সদস্য হলেও কেউ দোষী প্রমাণিত হলে তাকে বেত্রাঘাত করতে হবে।

তিনি আরো জানা, মুখলিসকে ওলামা কাউন্সিল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

আচেহ প্রদেশে ২০০৫ সাল চালু রয়েছে শরিয়া আইন। বিয়ে বহির্ভূত সম্পর্ক, সমকামিতা ও জুয়ায় কেউ দোষী হিসেবে প্রমাণিত হলে প্রকাশ্যে বেত্রাঘাত করা হয়। এছাড়া সেখানে মদপান, অ্যালকোহল উৎপাদন ও বিক্রি নিষিদ্ধ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য