আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাটঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার জগতবেড় ইউনিয়নের পূর্ব জগতবেড় ভেরভেরীরহাট এলাকায় বিবাহিত বোনকে রাস্তাঘাটে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উক্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় মেয়ের ভাইকে পিটিয়ে জখম করেছে বখাটে।

মেয়ের বাবা- মা ও পাটগ্রাম থানায় দেওয়া এজাহার সূত্রে জানা গেছে , বিবাহ উপযুক্ত মেয়েকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে প্রায়ই উক্ত্যক্ত করত একই গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে রানা (২৮)। এছাড়াও প্রকাশ্যে খুন, জখম করার হুমকিও দিত। রানার পরিবার প্রভাবশালী ও ক্ষমতাসীন হওয়ায় স্থানীয় ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, মেম্বার ও স্থানীয় নেতাদের নিকট ঘুরেও মেয়েকে উক্ত্যক্ত করার বিচার চেয়েও বিচার পাননি।

মেয়ের মা বেলি বেগম জানায়‘, এ জন্য ভয়ে পরিবার দিন দুপুরে বসতবাড়ী থেকে বেড় হতেন না,। তিনি আরও জানান, ‘রানা হুমকি দিয়ে বলে কাউকে কোনো কিছু বললে আমাদের পরিবারের সবাইকে নাকী সাত টুকরা করা হবে।’ অনেক কষ্টে একই উপজেলার ধবলগুড়ি গ্রামে মেয়েকে বিয়ে দেওয়া হয়।

এরপর রানা ও তার সহযোগীরা বাড়িতে গিয়ে বলে, ‘মেয়ে ও মেয়ের স্বামী চোঁখের সামনে পড়লেই খুন করা হবে।’ এ সকল হুমকির প্রতিবাদ করায় কলেজ যাওয়ার পথে গত রোববার মেয়ের বড় ভাই সুমন (২৪) কে রানা ও তার সহযোগীরা গাছের ডাল ও লোহার রড দিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে ডান হাত ভেঙ্গে দেয়। বর্তমানে সে পাটগ্রাম মেডিকক্যাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ব্যাপারে মঙ্গলবার (২৯ অক্টোবর) মেয়ের বাবা আব্দুল গফুর বলেন,‘থানায় অভিযোগ দিয়েছি। বিচার যদি না পাই, তাহলে আমাদের পরিবারের লোকজনের বেঁচে থাকার উপায় থাকবে না।

মেয়ের বড় ভাই সুমন জানায়, ‘কলেজ যাওয়ার সময় আমাকে লোহার রড ও গাছের ডাল দিয়ে রানা ও তার ছোট ভাই মনির নির্মম ভাবে মারপিট করে হাত ভেঙ্গে দেয়। আমরা এদের উপযুক্ত বিচার চাই।’

এ ব্যাপারে রানা বলেন, ‘মেয়েলি বিষয় নিয়ে ঝামেলা হয়েছে। আমি মারধর করিনি। আমার ছোট ভাই মনির চর, থাপ্পর দিছে।’

পাটগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন, ‘এজাহার পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য