কুড়িগ্রামের উলিপুরে গত দুই দিনের বৃষ্টি আর দমকা হাওয়ায় আমন ক্ষেতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কৃষকরা বন্যার ধকল কাটিয়ে চলতি আমন মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলনের আশা করলেও সে সম্ভাবনা ফিকে হয়ে যাচ্ছে। বৃষ্টি আর বাতাসে ধান ক্ষেত দুমড়ে মুচড়ে পড়ে গেছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি রোপা আমন মৌসুমে উপজেলার ১ টি পৌরসভাসহ ১৩ টি ইউনিয়নে ২৩ হাজার ৭শত হেক্টর জমিতে হাইব্রিড, উফসী ও স্থানীয় জাতের আমন ধান চাষাবাদে প্রায় ৬৪ হাজার মেঃটন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। সে আলোকে ক্ষেতে ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দেয়। কিন্তু কার্তিক মাসের শুরুতে গত দুই দিনের বৃষ্টি ও দমকা হাওয়ায় সে সম্ভবনা অনেকটা ম্লান হয়ে গেছে। অনেক এলাকার ধান ক্ষেত পানিতে পড়ে গেছে।

এ অবস্থায় ধান ক্ষেত নষ্ট হওয়ার সম্ভবনা দেখা দিয়েছে। অনেক কৃষক তাদের ক্ষেত রক্ষায় ধানগাছ বেঁধে দাড় করিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন। শনিবার সকালে উপজেলার ধামশ্রেনী ইউনিয়নের নাওড়া গ্রামের গিয়ে দেখা যায়, সাধু রাম বর্মন নামের এক কৃষক তার ক্ষেতের ধান গাছগুলো খড় দিয়ে বেঁধে দাড় করিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন।

এ সময় তার সাথে কথা হলে তিনি বলেন, ‘বৃষ্টি না থাকায় সেচ দিয়ে চাষাবাদ করছি, যা ধান পাব খরচেই উঠবে না, তার মধ্যে প্রাকৃতিক দুর্যোগ’। ওই গ্রামের বর্গা চাষী বাদশা মিয়া বলেন, ২ একর জমিতে ধান চাষ করছি। বৃষ্টি বাতাসে আবাদের যা অবস্থা খরচেই উঠবে না।

একই কথা জানান, দলদলিয়া ইউনিয়নের বর্গা চাষী সমছেল আলী, মকবুল হোসেন, আলমগীর মিয়া তবকপুর ইউনিয়নের আবু মোত্তালেব, জাবেদ আলীসহ অনেকে।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, সংশ্লিষ্ট উপ-সহাকারীদের মাধ্যমে ঝড়ে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ তালিকা করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য