ইরাকের রাজধানী বাগদাদসহ বেশ কয়েকটি শহরে পুলিশ ও ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে একদিনেই অন্তত ৪০ জন নিহত হয়েছে বলে দেশটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

দক্ষিণাঞ্চলীয় আমারা শহরে সংঘর্ষে সরকারের এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা ও প্রভাবশালী আসাইব আহল আল-হক মিলিশিয়া বাহিনীর এক সদস্যও নিহত হয়েছেন বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে।

ইরাকের মানবাধিকার হাইকমিশন (আইএইচসিএইচআর) ও মেডিকেল সূত্রগুলোর বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা রয়টার্স শুক্রবারের বিক্ষোভ, সহিংসতায় সারাদেশে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে।

যুদ্ধবিধ্বস্ত ইরাকে স্বাভাবিক অবস্থা ফেরাতে এবং জনসাধারণের জীবনমান উন্নয়নে ব্যর্থ রাজনৈতিক নেতৃত্বের বিরুদ্ধে কয়েক সপ্তাহ ধরে চলা এ প্রতিবাদ মধ্যপ্রাচ্যের তেলসমৃদ্ধ দেশটিকে বড় ধরনের সংকটের মুখে ফেলেছে।

“আমরা সবাই চারটি জিনিস চাই। চাকরি, পানি, বিদ্যুৎ ও নিরাপত্তা। এগুলোই আমরা চাই,” বলেছেন বাগদাদের কেন্দ্রস্থল তাহরির স্কয়ারের বিক্ষোভে অংশ নেওয়া আলি মোহাম্মদ; পুলিশের কাঁদানে গ্যাস থেকে বাঁচতে ১৬ বছর বয়সী এ কিশোরের মুখমণ্ডল একটি টি-শার্টে ঢাকা ছিল।

এদিন বাগদাদে তরুণ বিক্ষোভকারীদের ‘প্রাণ ও রক্ত দিয়ে ইরাক তোমাকে রক্ষা করবো’ স্লোগানের মধ্যেই পুলিশকে মুহুর্মুহু কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

চলতি মাসের মাঝামাঝিতে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের ধারাবাহিক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে ১৫৭ জন নিহত ও ছয় হাজারের বেশি আহত হয়েছিল।

আইএইচসিএইচআর জানিয়েছে, শুক্রবার কেবল বাগদাদেই পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাসের ক্যানিস্টারে ৫ বিক্ষোভকারীসহ অন্তত ৮ জন নিহত হয়েছে।

বিক্ষোভকারীরা দক্ষিণের নাসিরিয়া শহরে মিলিশিয়াবাহিনী আসাইব আহল আল-হকের (এএএইচ) একটি কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করলে ইরান সমর্থিত এ গোষ্ঠীর সদস্যরা পাল্টা গুলি ছুড়লে আরও অন্তত ৯ জনের মৃত্যু হয়।

আমারায় এএএইচের এক সদস্য ও এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা এবং ছয় বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছে। তেলসমৃদ্ধ বসরায় তিন বিক্ষোভকারী, হিলা ও সামাওয়াতে আরও দুইজনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে নিরাপত্তা সূত্রগুলো।

দিওয়ানিয়া শহরে আগুন লাগিয়ে দেওয়া একটি ভবনের ভেতর আটকা পড়ে ১২ বিক্ষোভকারীর মৃত্যু হয়েছে বলে পুলিশের বিভিন্ন সূত্রের পাশাপাশি হাসপাতালের মর্গের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

ভবনটির ভেতরে ইরান সমর্থিত বদর অর্গানাইজেশনের স্থানীয় কার্যালয় ছিল বলে জানিয়েছে রয়টার্স। ভেতরে অন্য বিক্ষোভকারীদের উপস্থিতির বিষয়টি না জেনেই একদল বিক্ষোভকারীরা ভবনটিতে আগুন দেয় বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শুক্রবারের সংঘর্ষ-সহিংসতায় ইরাকজুড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর অন্তত ৬৮ সদস্য আহত হয়েছেন বলে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র খালিদ আল মুহানা জানিয়েছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে দেওয়া এক ভাষণে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আবদুল মাহাদি ‘সহিংসতা সহ্য করা হবে না’ বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন। সরকারের পতন ঝঞ্জাবিক্ষুব্ধ ইরাককে আরও টালমাটাল পরিস্থিতিতে ঠেলে দেবে বলেও সতর্ক করেছেন তিনি।

বিক্ষোভ সামলাতে সরকারের পদক্ষেপের সমালোচনা করা প্রভাবশালী শিয়া নেতা গ্র্যান্ড আয়াতুল্লাহ আলি আল-সিস্তানি জুম্মার খুতবায় সব পক্ষকে শান্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য