সংবাদ সম্মেলনঃ ভোট জালিয়াতি,পক্ষপাতদুষ্ট ব্যার্থ নির্বাচন কমিশনার ঘোষিত ফলাফল বাতিল এবং জেলা প্রশাসনের অধিনে নিরপেক্ষ পুন:নির্বাচন ব্যবস্থার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা ট্্রাক,ট্যাংলড়ি,কার্ভাডভ্যান ও ট্্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়ন শ্রমিকরা।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে দিনাজপুর জেলা ট্্রাক,ট্যাংলড়ি,কার্ভাডভ্যান ও ট্্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়ন রেজি: নং রাজ ২৪৫ আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখিত অভিযোগ করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে গত ১৯/১০/১৯ তারিখে নির্বাচনে অংশগ্রহনকারী প্রার্থীদের পক্ষে অভিযোগের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মো: মানিকুল ইসলাম মানিক।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়েছে,১৯ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে সংগঠনের কার্য্যালয়ে বিরতিহীন ভাবে সকাল ৮ থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহনের কথা থাকলেও ব্যার্থ নির্বাচন কমিশনার এ্যাড: গোলাম ফারুক ব্যাপক অনিয়মের কারনে যথাসময়ে ভোটগ্রহন শুরু এবং শেষ করতে পারেনি। নানান অনিয়মের মধ্যেই ২দিন ধরে ভোট গ্রহন করেও সঠিকভাবে ভোটের ফলাফল সদস্যদের মাঝে দিতে পারেনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরো জানানো হয়েছে, ভোটগ্রহন শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এ্যাড: গোলাম ফারুকের কাছে কাস্টিং ভোট সর্ম্পকে জানতে চাইলে তিনি জানান ৩ হাজার ১৫৭টি ভোট পড়েছে অথচ শ্রমিকদের ভোটের জন্য পরিচয়পত্র জমা হয়েছে ৩ হাজার ২৫০টি। এখানে ৯৩টি পরিচয় বেশী জমা পড়লেও ভোটের সংখ্যা কম দেখানো হয়েছে। এদিকে ১৯ অক্টোবরের গৃহিত ভোট ২০ অক্টোবর রাত্রি ১১:৩০ মিনিট পর্যন্ত কোন ভোট গণনা কিংবা ফলাফল ঘোষনা করা হয়নি।

তারা বলেন, ভোট গ্রহন থেকে শেষ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনার ব্যাপক অনিয়ম, কারসাজি, লুকোচুরির মাধ্যমে ৩২৫০টি ভোট গ্রহন কররেও ভোট গণনার ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় অতিবিাহিত করায় নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু এবং গ্রহনযোগ্য হয়নি ফলে অংশগ্রহনকারী সকল প্রার্থীই প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেয়।

নির্বাচনের ফলাফল দিতে বিলম্ব হওয়ায় শত শত শ্রমিক বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। এসময় নির্বাচন ও নিবার্চন কমিশনার বাতিলের দাবীতে ১০ মাইল, ঘোড়াঘাট, ফুলবাড়ি, হিলি, হাকিমপুরসহ জেলার সকল রাস্তাঘাট অবরোধ করে রাখে। পুলিশ সুপার পুনরায় ভোট প্রদানে আশ্বাসের প্রেক্ষিতে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে নেয় এবং আল্টিমেটাম প্রদান করেছিলো এরই অংশ হিসেবে ২২ অক্টোবর সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন। এর আগে তারা ২১ অক্টোবর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিকট স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

শ্রমিকদের দাবী একটাই জেলা প্রশাসনের অধিনে অবাধ নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের ব্যবস্থার মাধ্যমে নির্বাচিত প্রতিনিধির নিকট দায়িত্ব হস্তান্তর করতে হবে। অন্যথায় কঠোর আন্দোলনের মাধমে সাধারন সভার সিদ্ধান্ত অমান্যকারী অবৈধভাবে নির্বাচিতদের প্রতিরোধ গড়ে তোলা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,সভাপতি পদপ্রার্থী এমএ জাহিদ, সহ:সভাপতি পদপ্রার্থী নুর ইসলাম ও মো: সামসুজ্জামান, সা: সম্পাদক পদপ্রার্থী মানিকুল ইসলাম মানিক,যুগ্ম সম্পাদক পদপ্রার্থী শফিকুল ইসলাম,সাংগঠনিক সম্পাদক পদপ্রার্থী বিপ্লব কুন্ডু,কোষাধ্যক্ষ পদপ্রার্থী মো: সাজিদ, সড়ক সম্পাদক পদপ্রার্থী রিজু ইসলামসহ ৫৫ জন বিভিন্ন পদে প্রতিদ্বন্ধিতাকারী প্রাথী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য