১২ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে রংপুরের একটি আদালতে মানহানির অভিযোগে দুটি পৃথক মামলা দায়ের করেছেন গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) নুরুন্নবী সরকার। মঙ্গলবার (১৫ অক্টোবর) দুপুরে রংপুর মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দুটি দাখিল করা হয়। পরে আদালতের বিচারক রংপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

মামলায় যমুনা টেলিভিশনের সিএনই (চিফ নিউজ এডিটর) ও মফস্বল ইনচার্জ এবং কালের কণ্ঠের সম্পাদক, বার্তা সম্পাদক ও মফস্বল সম্পাদক; যমুনা টিভির গাইবান্ধা প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান পলাশ, কালের কণ্ঠের সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধি শেখ মামুন-উর রশিদ, ইত্তেফাক সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধি রশিদুল আলম চাঁদ, দৈনিক জনসংকেত প্রতিনিধি জাহিদ কারী, জয়যাত্রা টিভির প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম অবুজ, দৈনিক ভোরের দর্পণের প্রতিনিধি একেএম ছামছুল হক ও মানবাধিকারকর্মী মাহাবুবুর রহমান খাঁনকে আসামি করা হয়।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, তার বিরুদ্ধে সম্প্রতি যমুনা টেলিভিশন, কালের কণ্ঠসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে অনিয়ম, দুর্নীতি, লুটপাটের একাধিক প্রতিবেদন ও সংবাদ প্রচার এবং প্রকাশ করা হয়েছে। এসব সংবাদ মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে এসব সংবাদ প্রচার ও প্রকাশ করেন। এতে তার সম্মানহানি হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে মামলার আসামি যমুনা টেলিভিশনের গাইবান্ধা প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান পলাশ বলেন, ‘পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে। এই বছরের জুন ক্লোজিংয়ে হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তাকে চাপ ও অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে কয়েক কোটি টাকার বিল স্বাক্ষর করে নেওয়ার অভিযোগ উঠে পিআইও নুরুন্নবীর বিরুদ্ধে। এই সূত্রেই সরেজমিন অনুসন্ধান, বিভিন্ন ডকুমেন্ট, তথ্য-উপাত্ত, মামলা, ভুক্তভোগী সংশ্লিষ্টদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতেই প্রতিবেদন প্রচার করা হয়। পিআইওয়ের বক্তব্য নিতে গিয়ে সংবাদকর্মীরা তার রোষানলেও পড়েন।’

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য