02. al-jazeera-microphoneমিশরে প্রসিকিউটররা আল জাজিরার ২০ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনছেন। দেশটিতে গৃহযুদ্ধ পরিস্থিতি বিরাজ করছে এমন চিত্র তুলে ধরার দায়ে এসব সাংবাদিক অভিযুক্ত হচ্ছেন। আল কায়েদার মদদপুষ্ট একটি গ্র“প এক পুলিশ জেনারেলকে হত্যার দায় স্বীকার করার একদিন পর প্রসিকিউটররা এ কথা জানিয়েছেন।

কায়রোর পশ্চিমাঞ্চলে গত মঙ্গলবার পুলিশের জেনারেল মোহাম্মদ সায়িদ গুলিতে নিহত হন। আল কায়েদার মদদপুষ্ট সংগঠন আনসার বেইত আল-মাকদিস এ হত্যার দায় স্বীকার করে এ ধরনের আরো হামলার হুমকি দিয়েছে। আগামী নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে লড়তে সেনাপ্রধান আব্দেল ফাত্তাহ আল সিসিকে শীর্ষ সামরিক পরিষদ সমর্থন দেয়ার একদিন পর এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

মিশরের ইতিহাসে প্রথমবারের মত গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসিকে গত ৩ জুলাই ক্ষমতাচ্যুত করে সেনাবাহিনী। এরপর তাকে স্বপদে পুনর্বহালের দাবিতে মুরসি সমর্থকরা রাজপথে নেমে আসে। এ সময় তাদের ওপর চলে পুলিশি অভিযান ও ধরপাকড়। মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের তথ্যানুযায়ী, ইসলামপন্থীদের ওপর অবিরাম অভিযানে কমপক্ষে ১ হাজার ৪শ’ লোক নিহত হয়েছে। তাদের বেশিরভাগই মুরসি সমর্থক।

অভিযানের অংশ হিসেবে কাতারভিত্তিক টেলিভিশন আল জাজিরার ২০ স্টাফকে বুধবার বিচারের মুখোমুখি করা হয়। তাদের মধ্যে পুরস্কাপ্রাপ্ত এক অস্ট্রেলীয় সাংবাদিক, ব্রিটেনের দুই জন ও নেদারল্যান্ডের এক নারী সাংবাদিক রয়েছেন। আল জাজিরা টেলিভিশনে মিশরে ইসলামপন্থীদের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক অভিযানের খবর প্রকাশিত হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়ে কর্তৃপক্ষ চ্যানেলটির বিরুদ্ধে মুরসির দল মুসলিম ব্রাদারহুডের সঙ্গে সম্পর্ক থাকার অভিযোগ এনেছে।

আল জাজিরার বিদেশী চার সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগ আনা হয়েছে। বলা হয়েছে, মিশরে গৃহযুদ্ধে পরিস্থিতি বিরাজমান বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। এতে বিদেশে মিশর সম্পর্কে ভিন্ন বার্তা গেছে। আর চ্যানেলটির মিশরীয় ১৬ সাংবাদিকের বিরুদ্ধে একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সঙ্গে সম্পর্কের অভিযোগ আনা হয়েছে। এ ব্যাপারে আল জাজিরা বলেছে, তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ খুবই তুচ্ছ এবং বাস্তবতার আলোকে তা করা হয়নি। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মহিলা মুখপাত্র জ্যাঁ সাকি সাংবাদিকদের অবিযুক্ত করার ঘটনার নিন্দা জানিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য