Dalowar Hosain Saidyদিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ জামায়াত নেতা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর আপিলের রায় ঘোষনাকে ঘিরে আতঙ্কিত রয়েছেন দিনাজপুরের কয়েকটি উপজেলার সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা। গত বছর ২৮ ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষনা পর দিনাজপুরে সংখ্যালঘু পরিবারের উপর ব্যাপক অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ও জ্বালাওপোড়াও ঘটেছিল। ইতিমধ্যে কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থা ব্যাপক নাশকতাকর্মকান্ড ঘটানোর আগাম আশংকা প্রকাশ করেছেন।

জামায়াত নেতা সাঈদীর রায় ঘোষনা করা হলে কি ধরনের আগামী সতর্কমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার রুহুল আমিন সাথে কথা বললে তিনি জানান, যেদিন সাঈদীর আপিলের রায় ঘোষনা করা হবে সে দিন যেন আইনশৃঙ্খলা যাতে বিঘœ না ঘটে সে ব্যাপারে সকল প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যাতে সকল নাগরিকের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করা যায়। কোন ব্যক্তি নিরাপত্তা বিঘœ ঘটানোর চেস্টা করে তাকে কঠোর হস্তে দমন করা হবে।

এদিকে দিনাজপুর চিরিরবন্দর উপজেলার রানীরবন্দর, ভূষিরবন্দর, খানসামার উপজেলা রামনগর এবং বীরগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি গ্রামে গত ২৮ ফেব্র“য়ারী সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষনার পর জামায়াত-শিবিরের ক্যাডারেরা সংখ্যালঘু পরিবারের বাড়ী-ঘরে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর, দোকান-ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাট করে। এর মধ্যে ভূষিরবন্দরের দিনাজপুর মোটর মালিক গ্র“পের সভাপতি ভবানী শংকর আগরওয়ালার বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ, ২০ লক্ষাধিক টাকার সারের দোকান লুট ও ৭টি মিনি বাসে আগুন দিয়ে ভস্মিভুত করা হয়। এতে তার কয়েক কোটি টাকার ক্ষতিসাধন করা হয়। এসব গ্রামের সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা এখন জামায়াত নেতা সাঈদীর আপীলের রায় ঘোষনার আগে থেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

এব্যাপারে দিনাজপুর হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের একজন নেতার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, আতঙ্কিত সংখ্যালঘু পরিবারদের যানমালের রক্ষার জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি তারা জোর দাবী জনাচ্ছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য