দীর্ঘদিন থেকে বৃষ্টিপাত না হওয়ায় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় পাট চাষীরা চরম বিপাকে পড়েছেন। সরজমিনে দেখা গেছে, চলতি পাট বুনন মৌসুমে মাটি ফেটে চেীচির হওয়ায় বীজ গজানোর মত রস নেই জমিতে। বাঁধ্য হয়ে কৃষকরা জমিতে সেচ দিয়ে পাট বীজ বুনছেন। এতে করে কৃষকদের উৎপাদন খরচ বাড়ছে। তারাপুরের কৃষক মোশাররফ হোসেন, মোস্তাক ও ইমদাদুল হক জানান, এমনিতেই বোরোর সেচ দিতে আর্থিকভাবে নাজেহাল হতে হয়েছে, তার উপর পাট বীজ বুননের আগেই জমিতে রস জমাতে সেচ দেয়া আমাদের মত কৃষকের জন্য কাটা যেন ঘায়ে লবণের ছিটা। কৃষি অফিস সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে ৪ হাজার ১’শ ৬০ হেক্টর জমিতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে দেশি পাট ৬০ হেক্টর, তোষা পাট ৪ হাজার ১’শ হেক্টর। গত বুধবার পর্যন্ত অর্জিত হয়েছে দেশি পাট ৫০ হেক্টর ও তোষা পাট ৩ হাজার ৪’শ ২০ হেক্টর। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ রোস্তম আলী জানান, চৈত্র মাস ও বৈশাখ মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত পাট বীজ বুননের উপযুক্ত সময়। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সত্যেন কুমার জানান, বৃষ্টি না হওয়ার কারণে কৃষকরা সেচ দিয়ে পাট বীজ বুনন করছে। এতে করে কৃষকদের সময় লাগছে বেশি। তবে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য