Khal Khononএম, আর মুন্না আজিজ চৌধুরী, আমবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ আমবাড়ীর পাশ্ববর্তী গ্রাম কুতুবপুর সংযুক্ত ইছামতি নদীর একটি পয়েন্টে গভীর খনন করে বালু উত্তোলন করছে ৭নং মোস্তফাপুর ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান (মতিন)। বিস্তারিত সূত্রে জানা যায়, আমবাড়ী হইতে কুতুবডাঙ্গা যাতায়াতের একটি কাঁচা রাস্তা ইছামতি নদীর কোল ঘেঁষে চলে গেছে। উক্ত

রাস্তাটি কাঁচা হলেও সুবিধাজনক জনসাধারণের চলাচলের জন্য সহজ রাস্তা হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। কুতুবপুর (চেয়ারম্যান পাড়া) এর ঐ রাস্তা সংলগ্ন পশ্চিম পার্শ্বে নদীর পয়েন্টটিতেই চলছে বালু খননের কাজ। যেখানে বালু খনন হচ্ছে, তার পশ্চিম পার্শ্বে রয়েছে বিস্তৃত আবাদী জমি। বালু খননের ব্যাপারে চেয়ারম্যানের সঙ্গে এলাকাবাসীর বেশ কয়েকবার ঝগড়াঝাটিও হয়েছে। এমনকি এলাকার সর্বস্তরের ব্যক্তিগণ বাধা প্রদান করেছিল। তারপরও সবকিছু উপেক্ষা করে এখনও চলছে বালু খননের কাজ। চেয়ারম্যান কোন কিছুকেই তোয়াক্কা করছেন না। এমনকি কাউকেই মানছেন না।

এমতাবস্থায় দেখা গেছে প্রায় ২০/২৫ ফিট বালু খননের স্থানটি গভীর হয়ে ভয়ংকর ক্ষতিকর মৃত্যু কুপ হিসেবে পরিণত হয়েছে। উক্ত বালু চেয়ারম্যান ব্যবহার করছেন আমবাড়ী গরু হাটির পুকুর ভরাটের কাজে। নদীটি যদিও এখন পর্যন্ত খরা তাপের কারণে শুকনো, সামনে আসছে বর্ষাকাল। বর্ষায় যখন নদিটি পানিতে ভর্তি হয়ে আসবে সেই স্রোতে ভেঙ্গে পড়বে জনসাধারণের চলমান রাস্তাটি। তার সঙ্গে গড়াবে পাশ্ববর্তী কবরস্থান। এবং অপর পশ্চিম কিনারে ভেঙ্গে বিলীন হয়ে যাবে আবাদী জমি গুলো।

উক্ত খাল খননের কারণে জনসাধারণের এতগুলো বড় ধরণের মারাত্মক ক্ষতির চলমান কাজ করেই চলেছেন চেয়ার মতিয়ার রহমান (মতিন)। তার সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনার জন্য যোগাযোগ করলে উক্ত বিষয়টির ব্যাপারে নির্বাক এবং গুরুত্বহীন মনোভাবের পরিচয় দেন। তিনি এ ব্যাপারে কোন কথাই কর্ণপাত করেন নি। উক্ত ভূক্তভোগী এবং আতংকীত এলাকাবাসীরা প্রতিনিধিকে জানান উক্ত চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান (মতিন) সে জনগণের সেবকনয়- শত্র“। সে জনসাধারণের উপকার করার বিপরীতে জনগণের জন্য মৃত্যুকুপ খনন করার মত কাজে লিপ্ত হয়েছে। যা ইচ্ছা তার মনমত এ ধরণের কাজ করেই চলেছেন।

চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান (মতিন) এর এ সমস্ত জনসাধারণের ক্ষতিকর কর্মকান্ডের জন্য উর্দ্ধতন কর্মকর্তা এবং কর্তৃপক্ষের প্রতি সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোরালো দাবী জানান এলাকাবাসী।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য