Simপঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নে শিম চাষ করে লাভবান হয়েছেন ডোলোপাড়ার মৃত. খয়রুল ইসলামের ছেলে মো: হাফিজুল ইসলাম প্রধান। তিনি ৭৫ শতক জমিতে মোট ১শত ৫টি থানের প্রতিটিতে ৩-৪ টি করে নোইট্যা জাতের শিম বীজ রোপন করেছেন। রোপনের ২ মাস পর গাছে ফুল আসে বলে জানান তিনি। শিম চাষে জৈব সার ও সেচ সঠিকভাবে প্রয়োগ করায় তিন মাসের মধ্যে তিনি শিম বিক্রি শুরু করেন। প্রথমে প্রতি মণ শিম ১ হাজার টাকা বিক্রি করলেও বর্তমানে তা অর্ধেকে নেমে এসেছে। তিনি প্রতিমাসে ৬-৭ বার শিম বিক্রি করেন। বাঁশের তৌরী জাঙ্গলা দিয়ে ৭৫ শতক জমিতে শিম চাষ করতে তার ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রতিবছর তিনি স্বল্প পরিসরে শীতকালীন সব্জি চাষ করলেও এবার বাণিজ্যিকভাবে শিমের আবাদ করেছেন। শিম চাষ করে প্রায় লক্ষাধিক টাকা লাভ করেছেন হাফিজুল প্রধান। শিমের ফলন ও ভালো দাম পেয়ে মো: হাফিজুল ইসলাম বেশ খুশি। শিম গাছে পোকার উপস্থিতি দেখা দিলে কিটনাশক প্রয়োগ করতে হয়। এ ছাড়া জৈব সার ব্যতিত শিম গাছে তিনি কোন প্রকার ভিটামিন বা রাসায়নিক সার প্রয়োগ করেন নি। শিম চাষে লাভবান হয়ে আগামী মৌসুমেও শিমের চাষ করবেন বলে জানান তিনি। এ ব্যপারে পঞ্চগড় জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের শষ্য উৎপাদন বিশেষজ্ঞ মো: সহির উদ্দীন আহামেদ বলেন, এককভাবে শিম চাষের কোন পরিসংখ্যান না থাকলেও পঞ্চগড়ে শীতকালীন সবজির পাশাপাশি শিমের ভাল ফলন হয়েছে। যে কোন উর্বর উচু ভিটায় শিমের চাষ ভাল হয়। ইপসা জাতের অধিক ফলনশীল শিম রোপনে কৃষকদের প্রতি গুরুপ্তারোপ করেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য