আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা থেকেঃ গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার হাট বাজার গুলোতেও এখন ভেজাল এবং নিম্নমানের পাট বীজের সয়লাব হওয়ায় কৃষকরা হতাশগ্রস্থ হয়ে পড়েছে। জানা গেছে, চলতি মৌসুমে সাঘাটা উপজেলার ১০ ইউনিয়নের কৃষকরা পাট চাষের জন্য ব্যাপক প্রস্তুতি শুরু করেছে। ইতিমধ্যে জমি তৈরী করে ভাল বীজ সংগ্রহ নিয়ে ভিষন দু’চিন্তায় পড়েছে। কারণ বাজারে পাট বীজ ক্রয় করে জমিতে বপনের পর সেখানে কম চারা গজাতে পারে এমন আশংকায়। ফলে প্রতারিত হওয়ার আশংকায় চিন্তিত কৃষকরা। উপজেলার বোনারপাড়া, সাঘাটা, জুমারবাড়ী, বারকোনা, উল্যা বাজার সহ বিভিন্ন হাটবাজার গুলোতে সরকারী অনুমোদন ছাড়াই গড়ে ওঠা দোকানগুলোতে স্থানীয়ও ভারতীয় ভেজাল এবং নিম্নমানের পাট বীজ দেদারছে বিক্রি হচ্ছে। এমন কি মুদির দোকান ও ফুটপাতে দোকান মিলিয়ে রং বেরং-এর প্যাকেটে এবং খোলা পাট বীজ বিক্রি করা হচ্ছে। এক শ্রেণীর মুনাফালোভী অস্বাধু ব্যবসায়ী মেয়াদ উর্ত্তীণ প্যাকেট বর্তমান বীজের সাথে মিলিয়ে ভারতীয় বঙ্গবীর মহারাষ্ট্র বঙ্গরাজ এবং স্থানীয় বিভিন্ন জাতের আকর্ষনীয় প্যাকেটে এসব বীজ বিক্রি করা হচ্ছে। আর কৃষকরা অধিক মূল্যে এসব বীজ কিনে প্রতারিত হচ্ছে। কৃষকরা জানায়, এসব বীজ ক্রয় করে জমিতে বপন করায় কম চারা গজিয়েছে। কৃষকেরা আসল বীজ চিনতে না পারায় দিশেহারা হয়ে পড়লেও কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। ফলে চলতি মৌসুমে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হবার আশংকা রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য