ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভাকে কেন্দ্র করে দলীয় অভ্যন্তরী কন্দলে বুধবার বিকাল ৫টায় দলীয় অফিসের সামনে দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ, গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

ঘটনাস্থলে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে উপজেলা প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেন। উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় অফিসে আইন-শৃঙ্খলা সাভাবিক রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

দলীয় অফিসের সংঘর্ষের ঘটনায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এনামুল হক (সাবেক ইউপি সদস্য), জহিরুল ইসলাম, আবু কালাম আজাদ রয়েল ও মহিরুল ইসলামসহ ৮ জন আহত হয়েছে।

সংঘর্ষের সময় ৪টি মটরসাইকেলে ভাংচুর ও অগ্নি-সংযোগ করা হয়। অগ্নি-সংযোগের সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে আসে।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান মুকুল বলেন, বুধবার বিকালে আওয়ামী লীগের উপজেলা কমিটির বর্ধিত সভা চলছিলো।

এমন সময় নৌকার বিপক্ষে নির্বাচন করেছিল তাদের নেতৃত্বে হঠ্যাৎ করে আমাদের উপর লাঠি-সোডা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়।এতে আমাদের কয়েকজন দলীয় নেতাকর্মী আহত হয় এবং কয়েকেটি মটর-সাইকেল ভাংচুর ও অগ্নি-সংযোগ করে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম আলমগীর বলেন, মেয়াদ উত্তীর্ণ উপজেলা কমিটির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নগেন কুমার পাল ও সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান মুকুলের নেতৃত্বে দলীয় গঠনতন্ত্র অমান্য ও অবৈধভাবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে এবং অগণতান্ত্রিকভাবে উপজেলা কমিটির কয়েকজন নেতা-কর্মীকে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে বহিস্কার করে।

পরবর্তীতে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুসরণ না করেই ঐসব পদে আবার তাঁরা নিজেরাই ঐ পদগুলোর বিপরীতে লোক নিয়ে অনুমোদন দিয়ে উপজেলা দলীয় কমিটির সদস্য করে।

নতুন সদস্যদের নিয়ে বুধবার বিকালে বর্ধিত সভার আহবান করেছিল। উপজেলা দলীয় অফিসে বর্ধিত সভায় গিয়ে দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি ও বহিস্কার হওয়া নেতাকর্মীরা তাদের নিকট জানতে চায়, কি কারণে এবং কোন গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আমাদের বহিস্কার করা হয়েছে।

এ সময় উভয় গ্রুপের মধ্যে বাকবিতন্ড শুরু হলে একপর্যায়ে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী এ সময় তাঁরা লাঠি-সোডা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের নেতাকর্মীর উপর হামলা চালিয়ে কয়েকটি গাড়ি ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এ সময় কয়েকজন নেতাকর্মী আহত হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবদুল করিম বলেন উপজেলা আওয়ামী দলীয় কার্যালয়ে আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে ১৪৪ ধারা জারি করে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত দলীয় কার্যালয় এলাকায় ১৪৪ ধারা বহাল থাকবে।

হরিপুর থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ আমিরুজ্জামান বলেন দলীয় কার্যালয়ে ১৪৪ ধারা বহাল ও আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনের করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য