হংকংয়ে বিক্ষোভের সময় মুখোশ নিষিদ্ধ করেছেন প্রধান নির্বাহী ল্যারি ক্যাম। তবে নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষা করেই গতকাল বিক্ষোভকারীদের রাস্তায় নামতে দেখা যায়। তারা এই আইন মানবেন না বলে জানিয়েছেন। এই সময় পুলিশের গুলিতে এক তরুণ আহত হয়েছেন। দ্বিতীয়বারের মতো বিক্ষোভে গুলির ঘটনা ঘটলো। খবর বিবিসি ও রয়টার্সের

প্রধান নির্বাহী ক্যারি ল্যাম গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, বিক্ষোভ হ্রাস করতেই মুখোশ নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঔপনিবেশিক আমলের জরুরি আইন ব্যবহার করে মুখোশ নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ল্যামি ক্যাম।

গত পহেলা অক্টোবর মুখোশ পরে বিক্ষোভ করায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে এবং সরকারকে বাধ্য করা হয়েছে বলে ল্যাম জানিয়েছেন। আজ শনিবার থেকে সরকারের নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে। বিক্ষোভকারীরা বলেছেন, ঔপনিবেশিক আমলের এই আইন মানা হবে না।

বিক্ষোভকারীরা তাত্ক্ষনিকভাবে নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে রাস্তায় নেমেছেন। তারা পুলিশকে লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মারে। তারা রাস্তায় আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ করেন। পুলিশ জানিয়েছে, ইউয়েন লং জেলায় বিক্ষোভ হয় ব্যাপক। এক বিক্ষোভকারী পুলিশকে লক্ষ্য পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করেন। জীবন বাঁচাতেই পুলিশ সদস্য গুলি করেন। এর বেশি কিছু জানায়নি পুলিশ।

 

সমালোচকরা নিষেধাজ্ঞার কড়া সমালোচনা করছেন। তারা বলছেন, এর মাধ্যম হংকং একনায়কতান্ত্রিকতার দিকে যাচ্ছে। চার মাস ধরে হংকংয়ে বিক্ষোভ চলছে। এ সময় বিক্ষোভকারীরা মুখোশ ও ছাতা ব্যবহার করছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য