সংবাদ সম্মেলনঃ সনাতন হিন্দু ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দূর্গাপুজায় হিন্দু ধর্মালম্বীরা যাতে নিশ্চিন্তচিত্তে ভাবগাম্ভীর্য্য ও আনন্দঘন পরিবেশে উৎসবটি উপভোগ করতে পারে সেজন্যে ৩দিনের সরকারী ছুটি ঘোষনার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

রবিবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট দিনাজপুর জেলা শাখার উদ্দ্যোগে সংবাদ সম্মেলনন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের দিনাজপুর শাখার নির্বাহী সভাপতি অধ্যাপক প্রভাস চন্দ্র রায়।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন,হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। ৫ দিনের দুর্গাপূজায় ১ দিনের সরকারী ছুটি অত্যন্ত অপ্রতুল। এ জন্য বর্তমান সরকারের কাছে আমরা বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট দিনাজপুর জেলা শাখার সকল নেতৃবৃন্দ ৩ দিনের সরকারী ছুটি ঘোষণার দাবী জানাচ্ছি। আরও বলেন,সম্প্রতি ইউনেস্কো দুর্গাপূজাকে হিন্দু সম্প্রদায়ের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করেছে। তাই সরকারের কাছে এটি এখন আমাদের সময়ের দাবী,সরকার এ দাবী পূরণ করবে বলে আমরা আশা প্রকাশ করছি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরো বলা হয়েছে, পূজার ছুটি বাড়ানো ছাড়াও সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠন, সরকারী চাকুরীতে সংখ্যালঘুদের জন্য ২০% কোটা, মহালয়ার দিন সরকারী ছুটি ঘোষণা, সারাদেশ ব্যাপি প্রতিমা ভাংচুর ও দুর্গাপূজা চলাকালীন সব ধরনের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ার দাবীতে আমরা অত্র সংগঠনের সকল নেতৃবৃন্দ বর্তমান সরকারের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি।

বিভিন্ন পরীক্ষা যেমন: বিশ্ব বিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা, চাকুরীর পরীক্ষা ও চাকুরীতে কর্মরত অবস্থায় বিভাগীয় পদোন্নতির পরীক্ষা অনুষ্ঠিত না হওয়ার দাবী জানাচ্ছি। উদাহরণ স্বরূপ বাংলাদেশের কম্পট্রোলার এন্ড অডিটর জেনারেল এর কার্যালয়ের এসএএস/এসআরএএস ২য় পর্ব পরীক্ষা বিজয়া দশমীর পরের দিন ০৯, ১০ও ১২ অক্টোবর /২০১৯ ইং তারিখে পরীক্ষা রাখা হয়েছে উক্ত কার্য্যালয়ে সকল ধর্মের মানুষ চাকুরী করেন।

বিশেষ করে হিন্দু ধর্মীয় মানুষের জন্য এই পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করা প্রায়ই কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। তাই এই পরীক্ষা সহ সকল ধরনের পরীক্ষা কমপক্ষে কয়েকদিন পরে নিলে ভালো হয়। এক কথায় সরকারের কাছে সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরী করার দাবী জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন,বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোট দিনাজপুর জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক চিত্ত রঞ্জন রায়, জেলা শাখার প্রধান উপদেষ্টা এ্যাডভোকেট কমল কান্ত কর্মকার, কাহারোল উপজেলা শাখার সভাপতি জগেশ চন্দ্র রায় ও সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার রায় এবং যুব মহাজোটের সাধারণ সম্পাদক দূর্জয় দাস প্রমুখ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য