সম্পর্কের খোলামেলা প্রকাশ ও উগ্র পোশাকসহ ‘প্রকাশ্যে শালীনতা’ লঙ্ঘনের জন্য জরিমানা করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব।

বিদেশি পর্যটকদের জন্য দ্বার উন্মুক্ত করার একদিন পর শনিবার এ ঘোষণা দেয় দেশটি, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ধরনের ১৯ ‘অপরাধ’ শনাক্ত করার কথা জানালেও জরিমানার পরিমাণ নির্দিষ্ট করে জানায়নি।

“নতুন আইনানুযায়ী পুরুষ ও নারীদের শালীন পোশাক পরতে হবে এবং প্রকাশ্যে অনুরাগ প্রকাশ থেকে বিরত থাকতে হবে। শালীন পোশাক পরার ক্ষেত্রে নারীরা স্বাধীনতা ভোগ করবে,” এক বিবৃতিতে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

“সৌদি আরবে আসা ভ্রমণকারী ও পর্যটকরা যেন রাজ্যটিতে প্রকাশ্যে চলাফেরার সঙ্গে সম্পর্কিত আইন সম্পর্কে সজাগ থাকে ও তা মেনে চলে তা নিশ্চিত করতেই এ আইন করা হয়েছে।”

তেলের ওপর নির্ভরশীলতা কমিয়ে পর্যটন শিল্পের প্রসারে বিদেশিদের জন্য প্রথমবারের মতো ভ্রমণ ভিসা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সৌদি আরব।

শুক্রবার ৪৯টি দেশের নাগরিকদের জন্য এই ভ্রমণ ভিসা চালুর ঘোষণা দেয়া হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি। এখন থেকে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও বেশ কয়েকটি ইউরোপীয় দেশসহ ওই ৪৯টি দেশের নাগরিকরা ই-ভিসায় বা অন অ্যারাইভেল ভিসায় সৌদি আরব ভ্রমণ করতে পারবেন।

তেলের ওপর নির্ভরশীলতা কমানো ও বিস্তৃত অর্থনৈতিক সংস্কারে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, বলছেন পর্যবেক্ষকরা।

সুন্নি সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশটি ২০৩০ সালের মধ্যে আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পর্যটক মিলিয়ে বছরে ১০ কোটি ভ্রমণপিপাসুকে আকৃষ্ট করে জিডিপিতে পর্যটনের অবদান ৩ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ নিশ্চিত করতে চায়; এ খাতে চাকরি সৃষ্টি করতে চায় অন্তত ১০ লাখ।

সৌদি আরব এতদিন ধরে মূলত হজযাত্রী, ব্যবসায়ী এবং অভিবাসী শ্রমিকদেরই ভিসা দিত।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য