প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ পরিষদের ভাষণে রোহিঙ্গা প্রসঙ্গ উত্থাপন করে বলেন যে মিয়ানমার ও তাদের নাগরিকদের মধ্যকার সমস্যার বোঝা বহন করতে হচ্ছে বাংলাদেশকে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তিনি আহ্বান রাখেন যেন তারা এই সংকটের বিষয়টি উপলব্ধি করে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এই সমস্যা এখন আর বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকছে না।”

“সকল প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বিষয়টি এখন আঞ্চলিক নিরাপত্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। পাশাপাশি এই এলাকার পরিবেশ, স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তাও ঝুঁকির সম্মুখীন হচ্ছে।”

জাতিসংঘ ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার চাপের মুখে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমার রাজি হলেও কার্যত দুই দফায় প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নিয়েও একজন রোহিঙ্গাকেও স্বেচ্ছায় রাখাইনে ফেরত পাঠানো সম্ভব হয়নি।

এই বিষয়টি তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যদিও রোহিঙ্গা সমস্যা বিলম্বিত হয়ে তিন বছরে পদার্পন করেছে, কিন্তু মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে সুরক্ষা, নিরাপত্তা ও চলাফেরার স্বাধীনতা এবং সামগ্রিকভাবে অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ায় এখন পর্যন্ত একজন রোহিঙ্গাও মিয়ানমারে ফিরে যায়নি। আমি অনুরোধ করব এই সমস্যার, অনিশ্চয়তার বিষয়টি যেন সকলে অনুধাবন করেন।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা এমন একটি সমস্যার বোঝা বহন করে চলেছি যা মিয়নামারের তৈরি। এটি সম্পূর্ণ মিয়ানমার এবং তার নিজস্ব নাগরিক রোহিঙ্গাদের মধ্যকার একটি সমস্যা। তাদের নিজেদেরই এর সমাধান করতে হবে।”

তিনি বলেন, ”এটা সম্পূর্ণভাবে মিয়ানমার এবং তার নিজস্ব নাগরিক রোহিঙ্গাদের মধ্যকার একটি সমস্যা। তাদের নিজেদেরই এর সমাধান করতে হবে। রোহিঙ্গাদের নিরাপদ, সুরক্ষিত ও সম্মানের সঙ্গে স্বেচ্ছায় রাখাইনে নিজ বাড়িতে ফিরে যাওয়ার মাধ্যমেই এই সমস্যার সমাধান সম্ভব।”

বাংলাদেশ সময় ভোর সাড়ে ৪টা নাগাদ ভাষণ দিতে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ”এটা সত্যিই দুঃখজনক যে, রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান না হওয়ায় আজ এই মহান সভায় বিষয়টি আমাকে পুনরায় উত্থাপন করতে হচ্ছে। ১১ লাখ রোহিঙ্গা আমাদের আশ্রয়ে রয়েছে। হত্যা নির্যাতনের কারণে তারা পালিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছে।”

রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারের রাখাইনে ফিরে যাওয়া নিশ্চিত করতে চারটি সুপারিশ তুলে ধরেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ” এর আগে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে কফি আনান কমিশনের সুপারিশগুলোর সম্পূর্ণ বাস্তবায়ন এবং রাখাইনে বেসামরিক ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা বলয় প্রতিষ্ঠাসহ পাঁচটি দফার প্রস্তাব করেছিলাম। আজ আমি কিছু প্রস্তাব করছি:

  • রোহিঙ্গাদের টেকসই প্রত্যাবাসন এবং আত্মীকরণে মিয়ানমারকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে রাজনৈতিক সদিচ্ছার পূর্ণ প্রতিফলন দেখাতে হবে।
  • বৈষম্যমূলক আইন ও রীতি বিলোপ করে মিয়ানমারের প্রতি রোহিঙ্গাদের আস্থা তৈরি করতে হবে এবং রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের উত্তর রাখাইন সফরের আয়োজন করতে হবে।
  • আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় হতে বেসামরিক পর্যবেক্ষক মোতায়েনের মাধ্যমে মিয়ানমার কর্তৃক রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার ও সুরক্ষার নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে।
  • আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অবশ্যই রোহিঙ্গা সমস্যার মূল কারণসমূহ বিবেচনায় আনতে হবে এবং মানবাধিকার লংঘন ও অন্যান্য নৃশংসতার দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করতে হবে।

রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে মিয়ারমার বাংলাদেশের সঙ্গে একটি চুক্তি করলেও তার বাস্তবায়ন হয়নি। দুই দফায় রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের দিনক্ষণ ঠিক করার পরেও নিরাপত্তার কারণে রোহিঙ্গাদের অনীহায় কাউকে ফেরত পাঠানো যায়নি।

রোহিঙ্গা ইস্যু ছাড়াও জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেয়া ভাষণে শেখ হাসিনা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, দারিদ্র্য দূরীকরণে সাফল্য, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে সাফল্য এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের বিষয়গুলো তুলে ধরেন। এছাড়া মাদক ও দূর্নীতির বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও বক্তব্য উল্লেখ করেন তিনি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য