তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার সম্মুখীন হওয়ার হুমকি সত্ত্বেও তার দেশ ইরানের সঙ্গে বাণিজ্যিক লেনদেন চালিয়ে যাবে। তিনি আরো বলেছেন, আঙ্কারার পক্ষে ইরানের তেল ও গ্যাস কেনা বন্ধ করা সম্ভব নয়।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৪তম বার্ষিক অধিবেশনে অংশগ্রহণ শেষে নিউ ইয়র্ক থেকে দেশে ফেরার পথে এরদোগান সাংবাদিকদের বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক শাস্তির হুমকিকে ভয় পায় না আঙ্কারা।

ইরানের ওপর আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দেশটির তেল বহন করার অভিযোগে চীনের ছয়টি জাহাজ কোম্পানির বিরুদ্ধে ওয়াশিংটন নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার পরপরই তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এমন ঘোষণা দিলেন।

যুক্তরাষ্ট্র ঘোষণা দিয়েছে, ইরানের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করে কোনো দেশ তেহরানের সঙ্গে বাণিজ্যিক লেনদেন করলে তাকেও নিষেধাজ্ঞার সম্মুখীন হতে হবে। এ সম্পর্কে এরদোগান বলেন, ‘আমি জানি নিষেধাজ্ঞা দিয়ে এ পর্যন্ত কোনো সমস্যার সমাধান হয়নি।’

ইরানের জ্বালানি তেল ও তেলজাত পণ্যের ওপর তুরস্ক ভীষণভাবে নির্ভরশীল। ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র তেহরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার আগে তুরস্ক ও ইরান বছরে ৩০ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্যিক বিনিময় করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছিল।

কিন্তু নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর ওয়াশিংটনের দৃষ্টিতে ঐ বাণিজ্য বিনিময় শূন্যের কোঠায় নেমে আসার কথা থাকলেও আঙ্কারা ও তেহরান এখনো ১২ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্যিক লেনদেন করে যাচ্ছে। প্রসঙ্গত, পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে প্রত্যাহার করে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন ট্রাম্প।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য