পাকিস্তানের উত্তরাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩০ জনে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া ৩ শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার বিকেলে পাঞ্জাব ও আজাদ কাশ্মীরে ভূমিকম্পটি আঘাত হানে। ৫.৮ মাত্রার এ ভূমিকম্পটির স্থায়িত্ব ছিল ৮ থেকে ১০ সেকেন্ড। ভূমিকম্পে পাকিস্তানের অনেক সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করা দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

১০ কিলোমিটার গভীরে আঘাত হানা ভূমিকম্পটি সবচেয়ে বড় আঘাত করে আজাদ কাশ্মীরের মিরপুরে। এছাড়া পাঞ্জাবের প্রায় সবগুলো শহরেই এটি অনুভূত হয়। সীমান্তবর্তী খাইবার পাখতুনের কিছু অংশেও কম্পন টের পান সেখানকার অধিবাসীরা।

এছাড়া দেশের ইসলামাবাদ, মিরপুর, পেশোয়ার, রাওয়ালপিন্ডি, লাহোর, শিয়ালকোট, শারগোধা, মানসেহেরা, গুজরাট, চিত্রাল, মালাকান্দ, মুলতান, শাংলা, বাজাউর, সোয়াত, শাহিওয়াল এবং রাহিম ইয়ার খান অঞ্চলগুলোতেও স্বল্পমাত্রার ভূ-কম্পন অনুভূত হয়।

মিরপুরের বিভাগীয় কমিশনার সৈয়দ মোহাম্মদ তৈয়ব জানান, ‘মিরপুরে ভূমিকম্পে এখন পর্যন্ত ৩০ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে। এদের মধ্যে তিনজন শিশু। নিহতদের মধ্যে দুজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। বাকিরা আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হলে সেখানে তারা মারা যান। ভূমিকম্পে আরও অন্তত তিনশ জন আহত হয়েছেন।’

ডিজি ইন্টার-সার্ভিসেস পাবলিক রিলেশন্স মেজর জেনারেল আসিফ গফুর জানান, এরমধ্যেই সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া এজেকে এবং আক্রান্ত এলাকাগুলোতে উদ্ধার অভিযানে সেনাদের অংশ নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ২০০৫ সালে এ এলাকায় শক্তিশালী একটি ভূমিকম্পে হাজার হাজার মানুষ নিহত হয়েছিল। তথ্যসূত্র: ডন, ইন্ডিয়া টুডে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য