দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরে পরিবর্তন চাই এর উদ্যোগে দিনাজপুরের ছয়টি সামাজিক সংগঠনের অংশগ্রহণে দেশটাকে পরিস্কার করি দিবস-২০১৯ পালিত হয়েছে। সকাল ১০ ঘটিকায় দিনাজপুর বড় ময়দানে এই উদ্যোগের দিনাজপুর জেলার আহবায়ক নাহিদা পারভিনের আহবানে শতাধিক সেচ্ছাসেবক পরিস্কার করণ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। দিনাজপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(রাজস্ব) আবু সালেহ মোঃ মাহফুজুল আলম শপথ বাক্য পাঠ করিয়ে কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

আলোর পথে জাগো দিনাজপুর, দিনাজপুর ম্যাথ ক্লাব, দিনাজপুর আইটি সুলেশন,দিনাজপুর আইটি ভিশন, দিনাজপুর কালেরকন্ঠ শুভ সংঘ জেলা শাখা ও সরকারি কলেজ শাখা। শতাধিক সেচ্ছাসেবক সারিবদ্ধ হয়ে দিনাজপুরের ঐতিহ্যবাহী বড় ময়দান পরিস্কার কার্যক্রম চালায়। এসময় দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের শিক্ষার্থী মল্লিনা আফরোজ মুনমুন এবং সোহানা আক্তার সাথী এই কার্যক্রমটি দেখে নিজ উদ্যোগে অংশগ্রহণ করলে আরো বেশ কিছু শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

আয়োজনে অংশগ্রহণ করা আলোর পথে জাগো দিনাজপুরের সমন্বয়ক মো: মোসাদ্দেক হোসেন জানান, দিনাজপুরে প্রতিবছর সারা দেশে একযোগে পালিত করা কার্যক্রমে আমার সামাজিক সংগঠন অংশগ্রহণ করে। এ ধরণের কার্যক্রম আমাদেরকে পরিবেশ রক্ষা এবং ডেঙ্গু সহ বিভিন্ন রোগ-বালাই থেকে রক্ষায় সামাজিক সচেতনতা সুষ্টিতে ভুমিকা রাখে। এতে অংশগ্রহণ করে আমরা অনুপ্রাণিত হয়েছি।

দিনাজপুর আয়োজনের আহবায়ক নাহিদা পারভিন জানান, এবছর শতাধিক সেচ্ছাসেবক নিয়ে ছয়টি গ্রুপ অংশগ্রহণ করে। এই আয়োজনে সেচ্ছা সেবক সহ পথচারীরাও অংশ নেয়। পথ চারিদের মধ্যে দিনাজপুর সরকারি মহিলা কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের ২ জন শিক্ষার্থী সাথী ও মুন উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বেচ্ছায় পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কাজে যোগদান করেন। তারা জানান আমরা এই দৃশ্য দেখে অভিভূত তাই তাদের কাজে উৎসাহ প্রদান করার লক্ষে যোগদান করি।

এই আয়োজনে অন্যান্যদের মধ্যে অংশগ্রহণ করে দিনাজপুর ম্যাথক্লাবে সভাপতি মোহাম্মদ আলী খন্দকার, দিনাজপুর আইটি সুলেশনের কর্ণধার নহিদা পারভিন, আলোর পথে জাগো দিনাজপুরের সমন্বয়ক মো: মোসাদ্দেক হোসেন, ডিআইএসটি পলিটেকনিক ইনষ্টিটউেটর শিক্ষক সহেল রানা, দিনাজপুর কালেরকন্ঠ শুভ সংঘের সভাপতি রাসেল ইসলাম ও দিনাজপুর সরকারি কলেজ শাখার সভাপতি মো: রশিদুল ইসলামের নেতৃত্বে শতাধিক সেচ্ছাসেবক অংশ নিয়ে বড় মাঠ পরিস্কার করে।

এদিকে, নাম প্রকাশে না করার শর্তে মাঠের দু’পার্শ্বের স্থানিয় বেশ কজন বাসিন্দা বলেন, দিনাজপুর বড় ময়দান হচ্ছে দিনাজপুরের ফুসফুস, অথচ মাঠটির কোন যত্ন বা পরিচর্যা হয়না। এই মাঠ শিশু কিশোরদের খেলাধুলার জায়গা। বিকালে আমার স্থানিয়রা সহ শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ এখানে নিঃশ্বাস ফেলতে আসে। কিন্তু সারা বছর মাঠটি বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভাড়ায় ব্যবহার করতে দেওায় হচ্ছে, মাঠের সৌন্দর্য নষ্ট হচ্ছে, কিন্তু যত্ন হচ্ছে না। যখন একেবারে দৃষ্টিকটু দেখায় তখন ছাত্রছাত্রীদের এনে মাঠ পরিস্কার করিয়ে নেয়।

অত্যন্ত দুঃখের বিষয় এই মাঠটিকে দুই ভাগে ভাগ করে ফেলা হয়েছে। এক পার্শ্বে ঈদহা অন্য পার্শ্বে ক্যাফেটেরিয়া। কিন্তু এটি একটি সম্পূর্ণ মাঠ ছিল, যার একপ্রান্তে ষ্টেশন আর অন্যপ্রান্তে  হ্যালিপোর্ট ছিল। হ্যাপোর্ট প্রান্তে মাঠটি এখন সামান্যই অবশিষ্ট আছে। বিভিন্ন অজুহাতে বিভিন্ন স্থাপনার মাধ্যমে মাঠটি দিনে দিনে বেদখল হয়ে যাচ্ছে। আমাদের যেন করার কিছু নেই। আর মাঠের হ্যালিপোর্ট বা ক্যাফেটেরিয়া প্রান্ত এখন নিয়মিত বানিজ্যিক ভাবে ব্যবহার হচ্ছে।

এবার মাঠে বানিজ্য মেলা শেষ ঘোষনার পরও মেলার আইটেম রাইড গুলে মাস পর মাস ধরে ব্যবসা করেছে। আর অবৈধ অস্বাস্থকর ফুচকা চটপটির দোকান গুলোর কারনে মাঠের পরিবেশ বারবার নষ্ট হচ্ছে। তারা মাঠের শৃঙ্খলা ও সৌন্দর্য ফেরাতে প্রশানকে মাঠ ভাড়া না দেওয়া এবং ফুচকা চটপটির দোকান গুলো উচ্ছেদ করার অনুরোধ করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য