gush banijjo_logo_23484বেলাল উদ্দিন, দিনাজপুরঃ প্রকাশ্যে ঘুষের মহাউৎসব চলছে দিনাজপুর চিরিরবন্দর উপজেলার সেটেলমেন্ট অফিসে। সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে অবৈধ আয়ের পাহাড় গড়ে তুলেছে সার্ভেয়ার সহ অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা কর্মচারীগণ। এক কথায় দুর্নীতির একটি মডেলে পরিণত হয়েছে চিরিরবন্দর সেটেলমেন্ট অফিসটি।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগে জানা যায়, সার্ভেয়ার বাতেন অবৈধ ঘুষের টাকা থেকে মাসে আয় করে প্রায় ৯ থেকে ১০ লক্ষ টাকা। এই টাকা আদায় ও হিসাব রাখার জন্য তার মাসিক ১০ হাজার টাকা বেতনের ২ জন নিজস্ব কর্মচারী রয়েছে। এই টাকার ভাগ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পকেটে যায়। ফলে নির্ভয়ে এহেন ন্যাক্কারজনক কাজ প্রকাশ্যে করে থাকে।

জমি সংক্রান্ত নানান জটিলতা ও সমস্যার সমাধানের জন্য জমির মালিকরা সেটেলমেন্ট অফিসে এলে প্রথমে পড়ে সার্ভেয়ার বাতেনের পাতা ফাঁদে প্রতিটি কেসের জন্য দিতে হয় ৩০০ টাকা। আর সিল স্বাক্ষরের জন্য আরও ২০ টাকা দিতে হয়। প্রতিদিন গড়ে ১০০টি মামলা নথিভুক্ত হয়। এ থেকে তার আয় হয় প্রতিদিন ৩০ হাজার টাকা। মাসে প্রায় ৯ লক্ষ টাকা। অথচ বৈধ খরচ মাত্র ২০ টাকার কোর্ট ফি। তিনি ৬-৭ বৎসরের চাকুরীতে প্রায় ১০ কোটি টাকারও বেশী অবৈধ আয় করেছেন। ঘুষ না দিলে কোন কাজ হয় না। উপরোন্ত হয়রানির মাত্রা বৃদ্ধি পায় ভুক্তভোগীদের।

ঘুষখোর সার্ভেয়ার বাতেন সহ চিরিরবন্দর সেটেলমেন্ট অফিসে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হাত থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য উর্দ্ধতন মহলের সহযোগিতা কামনা করেছেন ভুক্তভোগীরা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য