দিনাজপুর সংবাদাতাঃ পরিবেশ সুরক্ষা ও বজ্রপাত প্রতিরোধে দিনাজপুরের বিরল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উদ্যোগে ৬ হাজার তালবীজ বপন কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে।

উপজেলার রাণীপুকুর ইউনিয়নে রোববার বিকেলে এ তালবীজ বপন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাহবুবার রহমান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাহবুবার রহমান বলেন, এ দেশে বনভুমি থাকার কথা ২৫ ভাগ কিন্তু মাত্রারিক্ত বননিধন করায় বনভুমি ঘাটতি রয়েছে এখনো ৮ ভাগ। বিভিন্ন প্রজাতির গাছের চারা রোপনসহ পরিবেশ সুরক্ষা, জীববৈচিত্র রক্ষাসহ বজ্রপাত প্রতিরোধে তাল গাছ খুবই প্রয়োজনীয়।

তাই নিজ উদ্যোগে বিরল উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে এনএটিপি-২ প্রকল্পের সিআইজি সদস্যদের নিয়ে পরিবেশ সুরক্ষা, জীববৈচিত্র রক্ষাসহ বজ্রপাত প্রতিরোধে কৃষকদের তালবীজ বপনে উদ্বুদ্ধ করা হয়।

এনএটিপি-২ প্রকল্পের প্রতিটি ইউনিয়নে ১০ টি করে গ্রুপ রয়েছে। প্রতিটি গ্রুপে সদস্য সংখ্যা ৩০ জন করে কৃষক রয়েছে। এ উপজেলায় ১০০ টি গ্রুপে সদস্যের সংখ্যা হলো ৩০০ জন কৃষক। জনপ্রতি সদস্যের কাছ থেকে মাত্র দুইটি করে তালবীজ নিয়ে মোট ৬ হাজার টি তালবীজ সংগ্রহ করা হয়। পর্যায়ক্রমে এনএটিপি-২ প্রকল্পের সদস্যগন নিজেরাই প্রতিটি ইউনিয়ন গ্রুপের মাধ্যমে এ ৬ হাজার তালবীজ বপন করা হবে।

কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মাহবুবার রহমান আরও বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ বজ্রপাতের কারনে অনেকেই অকালেই মৃত্যুবরণ করেছেন। আগের তুলনায় বনভুমির সংখ্যা কমে যাওয়ার ফলে বজ্রপাতের কারণে মানুষ অকালে মৃত্যুবরণ করছেন। প্রাকৃতিক দুর্যোগ বজ্রপাত প্রতিরোধে এ তাল গাছের প্রয়োজনীয়তা লক্ষ করা যাচ্ছে। এরই ফলশ্রুতিতে দেশে তাল বীজ বপনে সরকার ব্যপক কর্মসুচি হাতে নিয়েছে।

সরকার বৃক্ষ রোপনের পাশাপাশি পরিবেশ সুরক্ষা, জীব বৈচিত্র রক্ষা ও বজ্রপাত প্রতিরোধে সারাদেশে তালবীজ বপন করার নির্দেশনাও দিয়েছেন। ইতিমধ্যে ত্রান ও দুর্যোগ মন্ত্রনালয় অধিদপ্তরাধীন প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তরের মাধ্যমে তালবীজ বপন কার্যক্রম গত বছর থেকে শুরু করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় নিজস্ব উদ্যোগে পরিবেশ সুরক্ষা ও বজ্রপাত প্রতিরোধে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরাধীন এনএটিপি-২ প্রকল্পের সিআইজি কৃষক সমিতির সদস্যদের মাধ্যমে তালবীজ বপন কার্যক্রম শুরু করেছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য