টানা বৃষ্টি আর উজানের পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার (৫২.৬০ সেন্টিমিটার) ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টায় বিপদসীমার ৫২ দশমিক ৮৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হলেও সকাল ৯টায় তা কমে বিপদসীমার ১৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক নূরুল ইসলাম তিস্তায় পানি বৃদ্ধির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘তিস্তা অববাহিকায় পানি বৃদ্ধির কারণে নিম্নাঞ্চলের ঘরবাড়ি, ক্ষেতের ফসল ও রোপা আমন ধান তলিয়ে গেছে।’

নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই ইউনিয়নের ঝাড়শিঙ্গেশ্বর, টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের দোলাপাড়া, চড়খড়িবাড়ী, খালিশা চাপানি ইউনিয়নের বানপাড়া ছোটখাতা, ঝুনাগাছ ও চাপানি ইউনিয়নের সোনাখুলী ফরেস্টের চরের ঘরবাড়িতে বন্যার পানি ঢুকেছে।

পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ জানান, ঝাড়শিঙ্গেশ্বর গ্রামের পাঁচ শতাধিক পরিবারের উঠানে বন্যার পানি ঢুকেছে।

এদিকে, টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মইনুল হক জানান, ছোটখাতা ও বানপাড়া গ্রামের মানুষজন তিস্তার ডান তীরে সপরিবারে আশ্রয় নিয়েছেন। এছাড়া দোলাপাড়া, তিস্তাবাজার চড়খড়িবাড়ী, পূর্বখড়িবাড়ী এলাকায় হাঁটুসমান পানি হয়েছে। ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র জানায়, উজানের ভারী বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে।

ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক উপসহকারী প্রকৌশলী আমিনুর রশীদ জানান, তিস্তার পানি হঠাৎ বৃদ্ধি পেয়েছে। বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টায় তিস্তার পানি বিপদসীমার ২৫ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে উজানের ঢল ও বন্যার পানি সামাল দিতে ব্যারাজের ৪৪টি স্লুইস গেট খুলে রাখা হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া ডিভিশনের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানান, ‘গত দুই দিনের ভারী বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলের কারণে তিস্তা নদীতে বন্যা দেখা দিয়েছে। সোমবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে তিস্তা নদীর পানি ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার (৫২ দশমিক ৬০ সেন্টিমিটার) ২০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হলেও মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। বুধবার সকাল ৬টায় ২৫ সেন্টিমিটার ও সকাল ৯টায় তা কমে বিপদসীমার ১৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য