সৌদি আরবের তেল স্থাপনার ওপর হামলার ব্যাপারে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ জোরালো পদক্ষেপ নেবে এমনটা আশা করছে যুক্তরাষ্ট্র। আর এ হামলার জন্য যুক্তরাষ্ট্র ইরানকে দায়ী করছে। মঙ্গলবার মার্কিন এক সিনিয়র কর্মকর্তা একথা জানান। খবর এএফপি’র।

ওই কর্মকর্তা বলেন, নিরাপত্তা পরিষদের পদক্ষেপের প্রচেষ্টায় সৌদি আরবের এগিয়ে আসা প্রয়োজন। তবে তার আগে প্রকাশের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের তথ্য প্রস্তুত করা প্রয়োজন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, এ হামলার ব্যাপারে ‘আমরা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের ভূমিকার দিকে তাকিয়ে আছি।’

তিনি বলেন, সৌদি আরব যে হামলার শিকার হয়েছে, বিশ্বব্যাপী এর একটি পরিণাম রয়েছে। আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার হুমকি মোকাবেলার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করা হয় জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। এমন বিষয় মাথায় রেখেই এটা মোকাবেলা করা উচিত হবে।

এক্ষেত্রে কি ধরনের পদক্ষেপে নেয়া যেতে পারে সে ব্যাপারে তিনি নির্দিষ্ট করে কিছু না বললেও এ বিষয়ে পরবর্তী করণীয় ঠিক করতে তারা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে চেষ্টা চালাবেন। আর সেখানে রাশিয়া ও চীনের ভেটো ক্ষমতা রয়েছে। তারা ইরানের বিরুদ্ধে ডোনাল্ড ট্রাম্পের একতরফা নিষেধাজ্ঞা আরোপের কঠোর সমালোচনা করে আসছে।

এদিকে ইউরোপীয় ক্ষমতাধর দেশগুলো ইরান বিষয়ে ট্রাম্পের কঠোর অবস্থান থেকে তাদের নিজেদের দূরে সরিয়ে রেখেছে। তারা তেহরানের পরমাণু কর্মসূচি বিষয়ে করা চুক্তি বজায় রাখার আহ্বান জানিয়েছে। আর গত বছরই এই চুক্তি থেকে ট্রাম্প বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য