পাকিস্তানে কথিত ধর্ম অবমাননার অভিযোগে একদল লোক একটি স্কুল ও একটি হিন্দু মন্দিরে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে।

স্কুলটির প্রিন্সিপাল মুসলিম নবী মোহাম্মদ (সাঃ) সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্য করেছেন বলে অভিযোগ তাদের, সোমবার জানিয়েছে পুলিশ।

সিন্ধু প্রদেশে ঘটনাটি ঘটেছে। স্কুলটির এক ছাত্রই প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনেছে।

এরপর একদল উত্তেজিত জনতা স্কুলটিতে ও নিকটবর্তী একটি মন্দিরে হামলা চালিয়ে তছনছ করে বলে ঘোটকি জেলার পুলিশ প্রধান বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন।

ওই প্রধান শিক্ষককে নিরাপত্তা হেফাজতে রাখা হয়েছে এবং ধর্ম অবমাননা ও দাঙ্গা, উভয় বিষয়ে পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

“প্রধান শিক্ষক সচেতনভাবে কিছু করেছেন বলে মনে হচ্ছে না,” পুলিশ প্রধান ফররুক আলী রয়টার্সকে বলেছেন।

পাকিস্তানের স্বাধীন মানবাধিকার কমিশন স্কুলে ও মন্দিরে হামলার নিন্দা জানিয়ে কর্তৃপক্ষকে আশু ব্যবস্থা নেওয়ার তাগিদ দিয়েছে।

নবী মোহাম্মদ (সাঃ) সম্পর্কে অবমাননাকর মন্তব্যের জন্য পাকিস্তানে মৃত্যুদণ্ডের বিধান আছে। ৯৫ শতাংশ মুসলিম বাসিন্দার এই দেশটির ব্লাসফেমি আইন অত্যন্ত কঠোর। তবে এই আইনে এ পর্যন্ত কারও মৃতুদণ্ড কার্যকর না হলেও এ অভিযোগের মুখে থাকা বেশ কয়েকজনকে উত্তেজিত জনতা বিভিন্ন সময় পিটিয়ে মেরেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য