দিনাজপুর সংবাদাতাঃ বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি বলেছেন, মরহুম এম আব্দুর রহিম একজন সৎ ও আদর্শবান রাজনীতিবিদ ছিলেন। বাংলাদেশে অনেক সৎ ও আদর্শবান মানুষের জন্ম হয়েছে। তাদের মধ্যে একজন ছিলেন এম আব্দুর রহিম। তিনি সারা জীবন দিনাজপুরের মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন।

তিনি শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে দিনাজপুর ঐতিহাসিক গোর-এ-শহীদ বড়ময়দানে এম আব্দুর রহিম সমাজ কল্যাণ ও যুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র আয়োজিত স্মরন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ট সহচর, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত, বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়ন কমিটির অন্যতম সদস্য, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন পশ্চিমাঞ্চলীয় জোনের চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য জননেতা মরহুম এম আব্দুর রহিমের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এই স্মরন সভার আয়োজন করা হয়।

স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি আরো বলেন, মরহুম এম আব্দুর রহিমকে একজন শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবক মানুষ হিসেবে আজোও মানুষ স্মরন করে। অনেকগুলো গুনের মধ্যে তিনি ছিলেন সংবিধান প্রণয়ন কমিটির একজন অন্যতম সদস্য। মানবিক মূল্যবোধ দিয়ে তিনি তাঁর সন্তানদের যোগ্য মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। মহান এই ব্যক্তির জীবন থেকে আমাদেরকে শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

স্পীকার আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের গতিধারা থেকে দিনাজপুরের মানুষ পিছিয়ে নেই। সারা দেশের সুষম উন্নয়নের ছোঁয়া দিনাজপুরে এসেও লেগেছে। রাস্তা-ঘাট, স্কুল-মাদরাসা, মসজিদ-মন্দিরের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সারা দেশে একশ’টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কাজ হাতে নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে দিনাজপুরেও একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলা হবে।

স্পিকার বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশকে একটি আত্মমর্যাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে গিয়েছিলেন। জাতি সংঘে বাংলা ভাষায় প্রথম জাতির পিতাই বক্তব্য দিয়েছিলেন। আর আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন এবং বিশ্বে আমরা যাতে মাথা উচুঁ করে চলতে পারি সেই লক্ষ্য নিয়ে তিনি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। আজকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে।

আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠায় আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা অবশ্যই প্রতিষ্ঠিত করবো। কাজেই আসুন সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে আমরা সকলেই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করি এবং নিজেদের অবস্থান থেকে দেশকে গড়ে তুলি। মানুষের কল্যাণে কাজ করে আদর্শ, সৎ, নির্ভিক রাজনীতিবিদ হিসেবে যেন আমরা সকলেই যারা রাজনীতিতে আছি দায়িত্ব পালন করতে পারি সেই প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি। শেষে রবীন্দ্র নাথের একটি উক্তি দিয়ে তাঁর বক্তব্য বক্তব্য শেষ করেন।

এম আব্দুর রহিম সমাজ কল্যাণ ও যুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্রের সভাপতি প্রবীন আইনজীবী এ্যাডভোকেট আজিজুল ইসলাম জগলু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ৭১ টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী মোজাম্মেল হক বাবু, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মরহুম এম আব্দুর রহিমের পুত্র সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম, মরহুমের কন্যা বিশিষ্ট চিকিৎসক ডা. নাদিরা সুলতানা, দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম, পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম বিপিএম, দিনাজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুল ইমাম চৌধুরী, দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি স্বরুপ কুমার বকসি বাচ্চু, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট নুরুজ্জামান জাহানী, বিএমএ দিনাজপুর জেলা শাখার সভাপতি ডা. এসএম ওয়ারেস আলী সরকার, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গসহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মী, দিনাজপুরের বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতাকর্মী, শহরের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

আলোচনা শেষে স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি মরহুম এম আব্দুর রহিমের তৃতীয় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য আয়োজিত বিভিন্ন সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন।

এর আগে জাতীয় সংসদের স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী এমপি দিনাজপুরে পৌঁছে সদর উপজেলার জালালপুরে গ্রামে অবস্থিত মরহুম এম আব্দুর রহিমের কবর জিয়ারত ও তাঁর রুহের মাগফিরাত কামনা করে মুনাজাত করেন। অনুষ্ঠান শেষে তিনি ঢাকার উদ্দেশ্যে দিনাজপুর ত্যাগ করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য