আজিজুল ইসলাম বারী, লালমনিরহাটঃ লালমনিরহাটের পাটগ্রামে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) গুলিতে নিহত বাবলু মিয়ার (২৪) মরদেহ এখনও ফেরত পাননি বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিজিবি)।

গত ৩ সেপ্টেম্বর নীলফামারীর ডিমলা ও লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার তিস্তা নদীর চর সীমানায় গরু নিয়ে ঘাস কাটতে গিয়ে সীমান্তের পিলার অতিক্রম করায় বিএসএফ গুলি চালায়। এতে মারা যায় বাবুল মিয়া এবং আহত হন সাইফুল ইসলাম (১৪)।

এ ঘটনার ১০ দিন পেরিয়ে গেলেও বিজিবি মরদেহ হস্তান্তরে কোন পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে পরিবারের পক্ষ থেকে ।

নিহত বাবলু ডিমলা উপজেলার পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের কালীগঞ্জ বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে এবং আহত সাইফুল একই ইউনিয়নের ঝাড় শিঙ্গেশ্বর গ্রামের গোলজার রহমানের ছেলে।

এদিকে সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহত যুবকের সম্পর্কে কোন তথ্য জানা নেই বলে জানিয়েছেন ডিমলা এলাকার দায়িত্বে থাকা ৫১ বিজিবি’র কমান্ডার। তবে ডিমলা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মফিজ উদ্দিন শেখ এ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের পক্ষ থেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে মরদেহটি হস্তান্তরের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে নিহতের স্ত্রীসহ আত্মীয় স্বজনরা।

এদিকে রোববার (৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নিহত বাবুলের মরদেহ ভারত থেকে ফেরত আনার আবেদন জানিয়ে ৫১ বিজিবি’র কমান্ডিং অফিসার (সিও) বরাবর কাছে লিখিত আবেদনটি ডিমলা উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রেরণ করেছেন বাবা নুর মোহাম্মদ। তবে ৫১ বিজিবির কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য