আজ কাল বয়স ২০-২১ না পেরুতেই মানুষ উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত হচ্ছেন।শুনতে, অবাক লাগলেও ব্যাপারটি সত্য।মনে রাখতে হবে,উচ্চ রক্তচাপের ব্যাপারটি হেলাফেলা করার মতবিষয় নয়।এটি একটি নীরব ঘাতক।
কেননা,উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা থেকে হার্ট অ্যাটাক,স্ট্রোক,হার্ট ফেইলিউর,সেক্সুয়াল ডিস ফাংশন,কিডনি ফেইলিউর মত সমস্যা হতে পারে।সুতরাং,সময় থাকতে সাবধান থাকতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপের কারণ

আসলে ঠিক কি কারণে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা হতে পারে তা এখন পর্যন্ত অজানা। তবে উচ্চ রক্ত চাপ কতগুলো সমন্বিত কারনে হতে পারে।
নীচের কারন গুলো থেকে মিলিয়ে নিতে পারেন আপনার উচ্চ রক্তচাপের কারন গুলো।
ধূমপান,অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভাস,অতিরিক্ত ওজন,কায়িক পরিশ্রমের অভাব,হতাশা,জেনেটিক কারণ,গর্ভাবস্থা,বয়স ৩৫ এর বেশি,দীর্ঘ দিন জন্ম নিয়ন্ত্রন পিল গ্রহন,ক্রনিক কিডনি ডিজিজ,অতিরিক্ত লবণ এবং ফ্যাটি খাবার গ্রহন উচ্চ রক্তচাপের কারন হতে পারে।
আর উচ্চ রক্তচাপ কমাতে হলে এই কারণ গুলোকে মাথায় রেখে সমাধান করার চেষ্টা করতে হবে।

উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণ

উচ্চ রক্তচাপের সব চেয়ে বিপদজনক দিক হল অনেকেই জানেন না যে তিনি উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত।উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত ব্যক্তিদের প্রায় এক তৃতীয়াংশ জানেনই না যে তারা উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত হয়েছেন।কেবল নিয়মিত মেডিকেল চেক আপের মাধ্যমে রক্তচাপ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া সম্ভব।
এমনিতেই উচ্চ রক্তচাপের তেমন কোন লক্ষন প্রকাশ পায়না।তবে রক্তচাপ অতিরিক্ত বেড়ে গেলে প্রচন্ড মাথা ব্যথা,বুকে ব্যথা,শ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া,ইউরিনে ব্লাড যাওয়া ভিসনে সমস্যা,নাক দিয়ে রক্ত পড়া হতে পারে।

যেভাবে নিয়ন্ত্রন করবেন উচ্চ রক্তচাপ

আমাদের লাইফ স্টাইল মডিফিকেশন এবং স্বাস্থ্যসম্মত খাবার গ্রহনের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ অনেক খানি নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব।তাই,উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা দূর করতে নীচের নির্দেশিকা গুলো মেনে চলুন।

প্রতিদিন স্বাস্থ্য সম্মত খাবার গ্রহনের প্রতি জোর দিন।প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় গোটা শস্য,সবুজ রঙের শাক সব্জি,মাছ,মুরগীর

মাংস,ডাল,সালাদ রাখুন সঠিক পরিমানে।

রেড মিট অর্থাৎ,গরু,খাসী,মহিষের মাংস,কলিজা,মগজ একবারে বর্জন করুন।
সপ্তাহে অন্তত তিন দিন ডাবের পানি এবং কলা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

ডার্ক চকলেট হার্টের জন্য ভীষণ ভালো,তাই হৃৎপিণ্ডের সুস্থতার জন্য প্রতিদিন এক টুকরা ডার্ক চকলেট খেতে পারেন।
প্রতিদিন যেকোন একটি টক ফল গ্রহন করুন।

সাদা চালের পরিবর্তে লাল চাল চালের ভাত গ্রহন করুন।
ভাতের পরিবর্তে লাল আটার রুটি,লাল চিড়া বা ওট্মিল খেতে পারেন।

ধূমপানের অভ্যাস থাকলে তা পরিহার করার চেষ্টা করুন।
কায়িক পরিশ্রমের পরিমান বাড়ান এবং নিজের আদর্শ ওজন অর্জনের চেষ্টা করুন।

প্রতিদিন নিয়ম করে ৪৫ মিনিট থেকে এক ঘণ্টা ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন।উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে ব্যায়ামের কোন বিকল্প নেই।
প্রতিদিন খাবার মেন্যুতে বিভিন্ন রঙের শাকসবজি এবং ফলমূল যোগ করুন,পাশাপাশি ১-২ টুকরা কাঁচা রসুন রাখবেন।

অতিরিক্ত লবনাক্ত খাবার বা পাতে অতিরিক্ত লবণ খাবেন না।
প্রতিদিন অন্তত ৭ ঘন্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন,রাত জাগবেন না বা দুশ্চিন্তা করবেন না।
অতিরিক্ত চা,কফি এবং পান,তামাক,জর্দা খাবার অভ্যাস পরিহার করুন।

রান্নায় অতিরিক্ত তেলের ব্যবহার নয়,সুস্থ থাকতে প্রতিদিন মাথাপিছু ৩-৪ চা চামচ তেলই যথেষ্ট।
একটানা সয়াবিন তেল ব্যবহার না করে,মাঝে মাঝে নারিকেলের তেল,অলিভ অয়েল,তিলের তেল,সূর্যমুখী বা রাইস ব্রান তেল ব্যবহার করতে পারেন।
যাদের উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা রয়েছে তারা নিয়মিত প্রেশার মাপবেন এবং লিপিবদ্ধ করে রাখবেন।
নির্দিষ্ট সময় পর পর হেলথ চেকআপ করবেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য