ভারতের স্বপ্ন ‌আপাতত অপূর্ণই রয়ে গেল। চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। ভারতজুড়ে একশ’ কোটির বেশি মানুষের চোখ ছিল এই অভিযানের শেষ মুহূর্তের প্রতি। চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডারের চাঁদে নামার দৃশ্য দেখতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উপস্থিত ছিলেন বেঙ্গালুরুর শ্রীহরিকোটায় ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা বা ইসরোর সদরদপ্তরে।

কিন্তু একেবারে শেষ মুহূর্তে মাত্র ২.১ কিলোমিটার দূরে থাকতেই চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় যোগাযোগ। আর এর মধ্যে দিয়ে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে ভারতের রোভার নামানোরর চেষ্টা কার্যত ব্যর্থ হয়ে গেছে।

তবে ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থার (ইসরো) বিজ্ঞানীদের নতুন অভিযানের উৎসাহ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেছেন, “আমরা পিছিয়ে পড়িনি… চাঁদে পৌঁছনোর জন্য আমাদের ইচ্ছাশক্তি আরও প্রবল হল, সংকল্প আরও দৃঢ় হল।”

চাঁদে নিয়ন্ত্রিত অবতরণের মিশন সফল হলে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া ও চীনের পর তালিকায় চতুর্থ দেশ হিসেবে নাম লেখাতে পারত ভারত।

ঠিক কী কারণে ল্যান্ডার থেকে সংকেত আসা বন্ধ হয়ে গেল, শেষ পর্যন্ত বিক্রমের ভাগ্যে কী ঘটেছে সে বিষয়গুলো এখনও জানতে পারেননি ভারতীয় মহাকাশ বিজ্ঞানীরা।

চাঁদের মাটিতে খনিজ সম্পদের খোঁজ করতে গত ২২ জুলাই রওনা হয়েছিল চন্দ্রযান। গত ২০ আগস্ট চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করেছিল চন্দ্রযান ২। ভারতের দ্বিতীয় চন্দ্রাভিযানে এখনো পর্যন্ত সেটিই ছিল সবচেয়ে কঠিন ধাপ। এরপর শুক্রবার রাতে চন্দ্রপৃষ্ঠে নামার প্রক্রিয়া শুরু হয়। ইসরো চেয়ারম্যান শিবান বলেন, সবকিছুই পরিকল্পনা মাফিক ছিল। ১ দশমিক ৩ মাইল পর্যন্ত স্বাভাবিক পারফরম্যান্স পাওয়া গেছে। এখন তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা হচ্ছে।#

পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য