৩১ আগস্ট শনিবার কুড়িগ্রামের রাজারহাটে সিন্দুরমতী মন্দিরের মন্দির ও বেশ কয়েক মুর্তি ভাংচুর করেছে দূর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় লালমনিরহাট জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনাটি এলাকাজুড়ে টক অফ দ্যা টাউনে পরিনিত হয়েছে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, কুড়িগ্রামের রাজারহাট লালমনিরহাট সীমান্তবর্তী এলাকায় সিন্দুরমতী দীঘির পাড়ে অবস্থিত উত্তরবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী সিন্দুরমতী মন্দির। গত ৩০ আগস্ট শুক্রবার গভীর রাতে দূর্বুত্তরা মন্দিরের দরজার গ্রীল ভাংতে না পেরে বারান্দায় রাধাকৃষ্ণে মুর্তি ভেঙ্গে দেয়। পাশের মূর্তিরও একই অবস্থা করে। এ সময় ওই মন্দিরের ভিতরের মূর্তিতে গোবর দিয়ে ঢিল ছোড়ে। দূর্গা মন্দিরের গ্রীল ভাংচুর করতে না পেয়ে দেয়াল ভাংগার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।

এ ছাড়া পাশের শিব ও কালি মন্দিরের বারান্দার দেয়াল ভেঙ্গে ফেলে। অপরদিকে সিন্দুরমতী পুকুরের মূল ফটকে অবস্থিত পাথর দিয়ে তৈরি মহাদেব মূর্তি ভাংচুর করতে না পারলেও সাপের মাথা ভেঙ্গে ফেলে দূর্বৃত্তরা।

সবমিলে ঐতিহ্যবাহী সিন্দুরমতী সবগুলো মন্দিরে সুকৌশলে রাতভর হামলা চালায় দূর্বৃত্তরা। মন্দিরের পূজারী স্বপ্না রানী জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় মন্দিরগুলোতে নিয়মিত সন্ধ্যা প্রদীপ জ¦ালিয়ে দিয়ে পূজা করা হয়েছে। এরপর ওই মন্দিগুলোতে সারা রাত বিদ্যুতের আলো জ¦লছিল। কে বা কারা গভীর রাতে এ অপকর্ম করে মন্দির ও রাধা গোবিন্দ মন্দিরের মূর্তি ভাংচুর করে। ওই এলাকার নবকুমার বলেন, এখানে নিয়মিতভাবে পূজার্চনা করা হয়।

মন্দিরে কোন পাহারাদার নেই। কয়েকদিন আগে পাশের রামমন্দিরে মূর্তিগুলো ফেলে দেয়া হয়েছিল। এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়নি। তাই এবার সিন্দুরমতী মন্দিরের মুর্তিগুলো ভেঙ্গে দিল দূর্বৃত্তরা। সিন্দুরমতী মন্দির পূজা কমিটি সভাপতি ডাঃ দেবেন্দ্রনাথ সরকার বলেন, মন্দির ও মূর্তি ভাংচুরের বিষয়টি শুনেছি। আপাতত অজ্ঞাতনামায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। লালমনিরহাট জেলা প্রশাসন ঘটনাস্থলে পরিদর্শন করেছে।

এ ঘটনায় লালমনিরহটি জেলা পূজা উদযাপন কমিটি ও কুড়িগ্রাম পূজা উদযাপন কমিটি, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ নিন্দা জানিয়ে দোষীদের চিহিৃত করে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

লালমনিরহাট সদর থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ মাহফুজার রহমান ঘটনার সত্যত্য নিশ্চিত করে বলেন, এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। দূর্বত্তদের চিহিৃত করে গ্রেফতরের পুলিশী অভিযান অব্যহত রয়েছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য