দারিদ্র্যপীড়িত ইয়েমেনকে কেন্দ্র করে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের মধ্যে যে সঙ্কট শুরু হয়েছে তা ইয়েমেনের জনপ্রিয় হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন এবং তাদের সমর্থিত সেনাবাহিনীর জন্য কল্যাণকর। গতকাল (শুক্রবার) শেষ বেলায় ইরানের ইংরেজি ভাষার নিউজ চ্যানেল প্রেস টিভির বিতর্ক অনুষ্ঠানে বেলজিয়ামের ঐতিহাসিক এবং সাংবাদিক রেচেট জংকার এ মন্তব্য করেছেন।

জংকার বলেন, “মোটামুটিভাবে ইয়েমেন ইস্যুকে কেন্দ্র করে সৌদিআরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের ভেতরে যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে এবং যে মতভেদ সৃষ্টি হয়েছে তা ইয়েমেনের হুথি আন্দোলনের জন্য ইতিবাচক। কারণ হুথিদের শত্রুরা এখন একে অপরের দিকে বন্দুক তাক করছে এবং সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে। এছাড়া, হুথিদের প্রতি মনোযোগ দেয়ার চেয়ে আরব আমিরাত সমর্থিত গেরিলাদের প্রতি সৌদি আরবকে বেশি মনোযোগ দিতে হচ্ছে। এ কারণে অনেকটা নির্বিঘ্নে সৌদি আরবের বিরুদ্ধে কাজ করতে সুবিধা পাচ্ছে হুথিরা।”

তিনি বলেন, যে সমস্ত মানুষ সামান্য সময়ের জন্য ইয়েমেন ইস্যু নিয়ে চিন্তাভাবনা করেন, বিশ্লেষণ করেন তারাই বুঝতে পারবেন যে, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি আরবের মধ্যে যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে তা অনেকটাই প্রত্যাশিত ছিল। ইয়েমেন ইস্যুকে কেন্দ্র করে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটে কখনো সুনির্দিষ্ট ভবিষ্যত পরিকল্পনা ছিল না বলেও জংকার মন্তব্য করেন।

বৃহস্পতিবারও ইয়েমেনের বন্দরনগরী এডেনে সৌদি সমর্থিত গেরিলাদের ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলে সৌদি সমর্থিত যেসব ব্যক্তি হুথিদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে তাদেরকে সংযুক্ত আরব আমিরাত সন্ত্রাসী বলে অভিহিত করেছে। আমিরাতের এ মন্তব্যের মধ্যদিয়ে ইয়েমেন ইস্যুকে কেন্দ্র করে আবুধাবি এবং রিয়াদের মধ্যকার মারাত্মক দ্বন্দ্ব ও মতভেদ আরো পরিষ্কার হয়ে উঠল।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, দেশের বিমান বাহিনী সন্ত্রাসীদের ওপর বিমান হামলা চালিয়েছে, এসব সন্ত্রাসী সৌদি নেতৃত্বাধীন জোটের জন্য হুমকি সৃষ্টি করেছিল। সরেজমিন গোয়েন্দা রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে এই বিমান হামলা চালানো হয়েছে বলে সংযুক্ত আরব আমিরাত জানিয়েছে। আবুধাবির এবিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, সশস্ত্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হাত থেকে আত্মরক্ষার জন্য আগেভাগে বিমান হামলা চালানো হয়।

এর আগে আরব আমিরাত সমর্থিত দক্ষিণাঞ্চলীয় বিচ্ছিন্নতাকামীরা বন্দরনগরী এডেনের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। ফলে পলাতক প্রেসিডেন্ট আব্দ রাব্বু মানসুর হাদির সমর্থিত যোদ্ধাদেরকে এডেন থেকে বহিষ্কৃত হতে বাধ্য হতে হয়েছে। হাদিপন্থীদের তথ্য অনুসারে, বৃহস্পতিবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিমান হামলায় ৩০০’র বেশি সৌদি সমর্থিত গেরিলা হতাহত হয়েছে। মানসুর হাদি অনুগত কর্মকর্তারা বলছেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত সৌদি সমর্থিত গেরিলাদেরকে সন্ত্রাসবাদে যুক্ত থাকার জন্য অভিযুক্ত করার চেষ্টা করছে।

– পার্সটুডে

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য