দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে মাটি ছাড়াই সবজির চারা উৎপন্ন করা হচ্ছে। উপজেলার দাউদপুর ইউনিয়নের উঃ মুরাদপুর বালার চড়া গ্রামের দুলাল মিয়ার ছেলে রহমত আলী ওই চারা উপন্ন শুরু করেছে। রহমত আলী জানায় তাকে এ কাজে সহযোগিতা করছে একটি এন জি ও সংস্থা।

ওই এন জি ও সংস্থা তাকে সকল পরামর্শ প্রদান সহ উপকরন সরবরাহ করছে। রহমতের ভাষায় গত মার্চ মাস থেকে সে চারা উৎপন্নের কাজ শুরু করেছে। প্রথমে চারা তৈরীর জন্য ওই সংস্থার নিকট থেকে ট্রে, কোকোবিট(নারিকেলের ছোবলার পচানো গুড়া), নেট সহ উপকরন ক্রয়ে খরচ পড়েছে তার প্রায় ৩০ হাজার টাকা। ১ম বারে ১০ হাজার চারা উৎপন্ন করে বিক্রি করেছে প্রায় ১৮ হাজার টাকা।

এবারে উৎপন্ন করা চারা বিক্রি করে তার লাভ বেশি আসবে। কারন ১ম বারে যে উপরকনগুলো কেনা হয়েছিল সেটি আর কিনতে হচ্ছে না বলে। সে বেগুন, মরিচ, পেঁপে, পাতাকপি,ফুলকপি সহ নানা ধরনের সবজির চারা উৎপন্ন করছে। সে রাস্তার ধারে চারা নার্সারির যে সাইন বোর্ড দিয়েছে তাতে লেখা রয়েছে ভাল ফলন ভাল দাম ফারমার্স হাবই সমাধান। ফারমার্স হাব সবজি নার্সারি।

সহযোগিতায় রয়েছে এস এফ এস এ বাংলাদেশ এবং সমন্বয়ে রয়েছে জি বি কে এন্টারপ্রাইজ লিঃ। চারা উৎপন্নকারী রহমতের নিকট মাটির পরিবর্তে যে কোকো বিট ব্যবহার করা হচ্ছে তাতে কিকি রয়েছে জানতে চাইলে সে বলে সে কিছুই জানেনা। সমন্বকারী সংস্থা সব জানে। সে সমন্বয়কারী সংস্থার শামসুজ্জামান নামে এক কর্মীর সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে দিলে সে জানায় সাক্ষাতে জানাবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার আবুরেজা মোঃ আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান বিষয়টি তার জানা থাকলেও সংশ্লিষ্ট কেউই তার সাথে এ পর্যন্ত যোগাযোগ রাখেন নাই।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য