আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে এলাকার কিছু উঠতি বয়সের যুবকদের নিয়ে গল্প করাকালীন সময়ে বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুন্নবী সর্দারের হাত-পা ভেঙ্গে দিয়েছে প্রতিপক্ষ আজাদুল গংরা। এ ব্যাপারে পলাশবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পবনাপুর ইউনিয়নের বরকাতপুর গ্রামের মৃত ময়েজ সর্দারের ছেলে বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুন্নবী সর্দার গত ১৩ আগস্ট বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ওই গ্রামের খাঁপাড়ায় আলমগীরের দোকানের সামনে এলাকার কিছু উঠতি বয়সের যুবকরা দেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু সম্বন্ধে গল্প শুনতে চায়। তাদের অনুরোধে বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুন্নবী সর্দার গল্প বলা শুরু করেন।

এমন সময় একই গ্রামের আজাহার সোনার ছেলে আজাদুল ইসলাম (৩৫) এসে এসব আলোচনা করতে বাঁধা নিষেধ করে। আজাদুলের বাঁধা নিষেধ উপেক্ষা করে বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুন্নবী গল্প বলতে থাকে এসময় সে ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে তাকে কিল-ঘুষি চর-থাপ্পর মারে।

পরবর্তীতে আজাদুলের হুকুমে মৃত ছমছেল সোনার ছেলে মোশারফ হোসেন (২৮)সহ অন্যান্যরা দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে বীরমুক্তিযোদ্ধার উপর হামলা চালিয়ে এলোপাথারী মারডাং করে তার ডান হাত ভেঙ্গে দিয়ে হাড় ভাঙ্গা, ছেলা-ফোলা রক্তাক্ত জখম করে।

এসময় মুক্তিযোদ্ধার বড় ছেলে ফজলু ও আলমগীর তাকে উদ্ধারে এগিয়ে এলে তাদেরকেও হত্যার উদ্দেশ্যে ধাওয়া দিয়ে বেধরক মারপিট রক্তাক্ত হাড়কাটা জখম করে। স্থানীয়রা বীরমুক্তিযোদ্ধাসহ তাদের উদ্ধার করে প্রথমে পলাশবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

পরে বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুন্নবীর অবস্থা গুরুতর হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। বর্তমানে তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজের মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দকৃত আসন নং- ৩১, ওয়ার্ড নং-৪ বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে নান্নু সর্দার বাদী গত ২৩ আগস্ট পলাশবাড়ী থানায় একটি মামলা (নং-১২/১৫৪) দায়ের করেন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য