ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী পালানিয়াপ্পান চিদাম্বারামকে দুর্নীতি ও অর্থ পাচারের অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন সময় ঘুষের বিনিময়ে বিদেশী বিনিয়োগের অর্থ আত্মসাত করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে তদন্ত করা হচ্ছে।

৭৩ বছর বয়সী মি. চিদাম্বারাম তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের এই সিনিয়র নেতা ১৯৮৪ সাল থেকে সাংসদ হিসেবে দায়িত্ব পলন করছেন এবং ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

বুধবার সেন্ট্রাল বুর‍্যো অব ইনভিস্টিগেশন (সিবিআই) সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করার সময় তার সমর্থক এবং গণমাধ্যম কর্মীরা তার গাড়ির আশেপাশে ভিড় করে।

মঙ্গলবার রাতে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার দিল্লির বাসভবনে কর্মকর্তারা যাওয়ার চেষ্টা করলে বলা হয় যে তিনি বাসায় নেই।

মি. চিদাম্বারামের গ্রেফতারের ঘন্টাখানেক আগে তিনি সুপ্রিম কোর্টেরও শরনাপন্ন হয়েছিলেন, কারণ তার আগেরদিন দিল্লি হাইকোর্ট তার জামিনের আবেদন নাকচ করে দেয়।

আদালতে তার আইনজীবী অভিযোগ করেন, ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন সরকার মি. চিদাম্বারাম ও তার ছেলে কার্তির বিরুদ্ধে ‘রাজনৈতিক প্রতিশোধ’ চরিতার্থ করার লক্ষ্যে এই মামলা সাজিয়েছে।

২০০৭ সালে অর্থমন্ত্রী থাকাকালে আইএনএক্স গ্রুপের দশ মিলিয়ন ডলারেরও বেশি বিদেশী বিনিয়োগ আত্মসাত করার অভিযোগ আনা হয়েছে তার বিরুদ্ধে।

মি. চিদাম্বারামের ছেলে কার্তি চিদাম্বারামের বিরুদ্ধে অভিযোগ, অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ঐ বিনিয়োগের ছাড়পত্র পাইয়ে দেয়ায় আইএনএক্স’এর কাছ থেকে ঘুষ পেয়েছিলেন তিনি।

আর্খিক লেনদেন বিষয়ক অপরাধের তদন্ত করা সংস্থা সিবিআই এবং এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট অভিযুক্ত দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্ত করছে।

২০১৮ সালে কার্তি চিদাম্বারামকে গ্রেফতার করে সিবিআই, কিন্তু পরে তাকে জামিনে ছাড়া হয়। তিনি ভারতের দক্ষিনাঞ্চলের রাজ্য তামিল নাড়ুর একজন কংগ্রেস এমপি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য