আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধাঃ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার গাইবান্ধায় দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়। জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কর্মসূচির মধ্যে ছিল কোরখানি ও দোয়া মাহফিল, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, শোক র‌্যালী, আলোচনা সভা, শিশু-কিশোরদের চিত্রাংকন, আবৃত্তি, হামদ নাত ও রচনা প্রতিযোগিতা, যুব উন্নয়নের চেক বিতরণ, স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচী, মেডিকেল ক্যাম্প, সকল মসজিদে মিলাদ মাহফিল-মন্দির-গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা ও বঙ্গবন্ধুর জীবনীর উপর আলোকচিত্র প্রদর্শনী।

র‌্যালী শেষে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. আলমগীর কবীরের সভাপতিত্বে স্থানীয় পৌর শহীদ মিনার চত্বরে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার প্রকৌশলী আব্দুল মান্নান মিয়া, জেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক, পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন, সিভিল সার্জন ডাঃ এবিএম আবু হানিফ, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার উত্তম কুমার রায় প্রমুখ।

অপরদিকে গাইবান্ধা জেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোও পৃথক পৃথক কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে শোক দিবসটি পালন করে। সুর্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় চত্বরে জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত করণ, কালো পতাকা উত্তোলন, পরে ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচি সমুহে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সৈয়দ শামসুল আলম হিরু, সাধারণ সম্পাদক আবু বকর সিদ্দিক, পৌর মেয়র অ্যাড, শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির মিলন. মৃদুল মোস্তাফিজ ঝন্টু, রেজাউল করিম রেজা, রনজিৎ বকসী সূর্য, আমিনুর জামান রিংকুসহ জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধুর মুরালে পুস্পস্তবক অর্পন করেন আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

পরে শোক র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আগামী ১৮ আগস্ট সকালে পৌর শহীদ মিনার চত্বরে আলোচনা সভা এবং দুপুরে আসাদুজ্জামান স্কুল ও কলেজে খাদ্য বিতরণের বিশেষ কর্মসূচি পালিত হবে। এছাড়া জেলা শিল্পকলা একাডেমি এ উপলক্ষে কবিতা আবৃত্তি ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে এবং জেলা শিশু একাডেমির উদ্যোগে শিশু-কিশোরদের জন্য দেয়ালিকা পত্রিকা প্রদর্শন, রচনা প্রতিযোগিতা, রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা এবং কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার আয়োজন করে হয়। এছাড়া জেলার মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোতেও পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালিত হয় এবং বিভিন্ন অফিস-আদালত, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনিমিত রাখা হয়।

পলাশবাড়ীঃ গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু’র ৪৪তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে।

কর্মসূচি সমূহের মধ্যে ৭ আগস্ট সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে প্রথম হতে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি ও রচনা প্রতিযোগিতা। ১৫ আগস্ট সূর্যোদয়ের সাথে-সাথে সকল সরকারি-আধা সরকারি,স্বায়ত্তশাসিত, বেসরকারি অফিস ভবন, বিভিন্ন স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বাসা-বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত, উপজেলা প্রশাসনের অপরাপর বিভাগীয় দপ্তর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিভিন্ন সংগঠনের অংশগ্রহণে শোক র‌্যালি, আলোচনা সভা, বিজয়িদের মাঝে পুরস্কার ও বেকার যুব-মহিলাদের মাঝে যুব ঋণ বিতরণ, বাদ যোহর অথবা সুবিধামত সময় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ছাড়াও উপজেলার সকল মসজিদ, মন্দির ও অন্যান্য উপসনালয়ে বিশেষ মিলাদ মাহফিল-দো’আ ও প্রার্থনা।

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন চত্ত্বরে বঙ্গবন্ধু’র প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণের পর এস.এম পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ হতে একটি শোক র‌্যালি সদরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শেষে র‌্যালিটি উপজেলা পরিষদ সভা কক্ষে আলোচনা সভায় গিয়ে মিলিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মেজবাউল হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক এমপি ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব তোফাজ্জল হোসেন সরকার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, সহকারি কমিশনার (ভূমি) মোছা. মেরিনা আফরোজ, থানা অফিসার ইনচার্জ মাসুদুর রহমান, উপজেলা পরিষদ ভাইস- চেয়ারম্যান এএসএম রফিকুল ইসলাম রিপন, আনোয়ারা বেগম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু বকর প্রধান, সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ শামিকুল ইসলাম সরকার লিপন, সহ-সভাপতি ছাইফুলার রহমান চৌধুরী তোতা, আলী রেজা মোস্তফা গোলাপ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহদীপুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌহিদুল ইসলাম মন্ডল, জাসদ সভাপতি নুরুজ্জামান প্রধান, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সাবেক কমান্ডার আব্দুর রহমান, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ আজিজুল ইসলাম ও সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার সরকার প্রমুখ।

উপজেলা প্রশাসনের অপরাপর দপ্তরের কর্মকর্তা, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়াও নানা রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবি সংগঠন নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন। পরে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সাব-রেজিষ্ট্রিঅফিস চত্ত্বরে পৃথক এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য