দিনাজপুর সংবাদাতাঃ সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক দিনাজপুর পৌর এলাকার নির্ধারিত স্থানে ঈদুল আযহা-২০১৯ এর কুরবানীর পশু জবাই, জবাইকৃত পশু’র রক্ত ও উচ্ছিষ্টাংশ গর্ত করে মাটিতে পুতে রাখার জন্য অনুরোধ করেছেন পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম।

এ ব্যাপারে শুক্রবার (৯ আগষ্ট) জুমার নামাজের খুতবার পূর্বে পৌরবাসি মুসল্লিদের অবহিত করতে শহরের ১৩০টি মসজিদের ইমাম সাহেবকে চিঠি দেয়া হয়েছে। চিঠিতে মুসল্লিদের সামনে বিষয়টি উপস্থাপনের জন্য ইমাম সাহেবদেরকে অনুরোধ করা হয়েছে। নির্দেশনা মোতাবেক পৌর শহরের ১৩০টি মসজিদের ইমাম সাহেব মুসল্লিদেরকে বিষয়টি অবহিত করেছেন।

দিনাজপুর পৌরমভার ফাতেহুল আলম দুলাল মিলনায়তনে পৌর মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এই সিদ্ধান্ত মোতাবেক নির্ধারিত স্থানে কুরবানীর পশু জবাই করার জন্য ৯ আগষ্ট শুক্রবার জুমার নামাজের খুতবার পূর্বে পৌরবাসি মুসল্লিদের অবহিত করতে শহরের ১৩০টি মসজিদের ইমামকে চিঠি দেয়া হয়। ওই চিঠিতে নির্ধারিত স্থানে পশু জবাই করতে কুরবানীদাতাদেরকে অনুরোধ করেছেন পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। বৈঠকে পৌরসভার কাউন্সিলর, কর্মকর্তাসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ওই চিঠিতে ৬টি নির্দেশনায় বলা হয়, “পশু জবাই’র পূর্বে গর্ত করে নিন। গর্তের মধ্যে রক্ত গোবর ও পরিত্যক্ত পচনশীল অংশ রাখুন। জবাইকৃত পশু’র উচ্ছিষ্টাংশ নিকটস্থ ডাস্টবিনে ফেলুন। জবাইকৃত পশুর রক্ত ও অপ্রয়োজনীয় অংশ পুকুর/খাল/নর্দমা কিংবা যেখানে সেখানে ফেলবেন না এবং রাস্তাÑঘাটে কুরবানীর পশু জবাই করবেন না। এতে পরিবেশ দূষিত হয়, মশা-মাছির বংশ বৃদ্ধি পায় এবং মারাত্মক রোগ ছড়ায়। কুরবানীকৃত পশুর বর্জ্য দ্রুত অপসারণের জন্য প্রয়োজনবোধে পৌরসভাকে অবহিত করুন।

চিঠিতে আরো বলা হয়, কুরবানী একটি ধর্মীয় অনুশাসন এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ইমানের অঙ্গ। কুরবানীর পরে আপনার পরিবেশ যাতে দূষিত না হয় এবং কুরবানীর পবিত্রতা নষ্ট না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। শহরের পরিবেশ সুন্দর রেখে ধর্মীয় দায়িত্ব পালন করুন। বাড়ীর আঙ্গিনা, বাড়ীর আশে-পাশে ঝোপঝাড় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন এবং যাতে কোথাও পানি জমে না থাকে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। ফুলের টপ, ভাঙ্গা হাড়ি, ডাবের খোলস, প্লাষ্টিকের বোতল, গাড়ীর টায়ার ইত্যাদিতে যাতে পানি না জমে সেদিকে খেয়াল রাখার জন্য আপনাদেরকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল।”

উল্লেখ্য, সরকারী নির্দেশনা মোতাবেক পৌর এলাকা পরিচ্ছন্ন রাখতে পৌরবাসিকে নির্ধারিত স্থানে পশু কুরবানী করতে অনুরোধ করেছেন দিনাজপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ জাহাঙ্গীর আলম। পশু কুরবানীর জন্য পৌরসভার প্রতিটি ওয়ার্ডে ৮টি করে ১২টি ওয়ার্ডে ৯৬টি স্থান নির্ধারণ করেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। আগামী ১২ আগষ্ট সোমবার ঈদুল আযহার কুরবানী অনুষ্ঠিত হবে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য