দিনাজপুর সংবাদাতাঃ শিক্ষকের অবহেলায় ১০ম শ্রেণীর ছাত্র আজিম মন্ডলের মৃত্যুতে স্কুল ভাংচুর ৬ টি মটরসাইকেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে উত্তেজিত শিক্ষারর্থীরা খবর পেয়ে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

নিহত আজিম মন্ডল (১৬) উপজেলার কাটলা ইউনিয়নের শৈলান গ্রামের আরশাদুল ইসলামের ছেলে।

৭ আগোষ্ট বুধবার দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলার কাটলা উচ্চ বিদ্যালযের গিয়ে উপস্থিত আলমগীর, রফিকুল ও আশিকসহ বেশ কিছু ছাত্রের সাথে কথা বললে তারা জানান, বুধবার বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে ক্লাস করার সময় হঠাৎ আজিম অসুস্থ হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে শিক্ষক কোন ভুমিকা রাখে না আমরা সারকে বললে তারা উল্টো আমাদেরকে ডাক্তার দেখাতে বলে হাসপাতালে নিয়ে যেতে মটরসাইকেল চাইলে না দিয়ে রাগ দেখায়। তারা আরো জানান, পরে অটো ভ্যানে করে বিরামপুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তায় মারা যায় আজিম।

উপস্থিত শিক্ষারর্থীরা ক্ষিপ্ত হয়ে লাশ নিয়ে স্কুলের দর্জা, জানালা, ফ্যান ভাংচুর করে ৬টি মটরসাইকেলে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে খবর পেয়ে বিরামপুর থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিভায়।

শিক্ষকদের অবহেলায় শিক্ষার্থীর মৃত্যুর অভিযোগ, বিরামপুরে ৬ টি মটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ Dinajpurnews দিনাজপুরনিউজ I+নিহত আজিমের পরিবার জানান, আজিম আগে থেকেই অসুস্থ ছিল তার এমন অবস্থা হলে আমরা ডাক্তার দেখায় ঔষধ খেলে ভালো হয় কিন্তু আজ শিক্ষকের অবহেলায় এই ঘটনা ঘটেছে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক নজরুল ইসলাম জানান, আজিম আগে থেকে একটু অসুস্থ ছিল সেই রোগ আজ বেশি হয়ে তার বন্ধুরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে সে মারা যায়।

স্কুলের সভাপতি আলম হোসেন জানান, আশিক আগে থেকে অসুস্থ ছিল তার পরিবার চিকিৎসার জন্য ভারতের মাদরাজও নিয়ে গিয়েছিল আজ সে মারা গেলে এলাকার কিছু অসত ব্যক্তির উসকানিতে শিক্ষারর্থীরা বিদ্যালয়টি ভাংচুর এবং শিক্ষকের ৬টি মটরসাইকেলে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

কাটলা ইউপি চেয়ারম্যান নাজির হোসেন জানান, আমি শুনলাম শিক্ষকের অবহেলার কারনে এই ঘটনা ঘটেছে। শিক্ষক কেন অবহেলা করল আর শিক্ষারর্থীরা কেন ভাংচুরসহ মটরসাইকেলে আগুন দিল বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনিয় ব্যবস্তা গ্রহন করা হবে।

বিরামপুর থানার ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে এনেছি বর্তমানে পরিবেশ সাভাবিক রয়েছে এবং স্কুল বন্ধ আছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য