কাশ্মীর এবার জঙ্গিদের নিয়ন্ত্রণে চলে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেসের পদত্যাগী সভাপতি রাহুল গান্ধী। মঙ্গলবার টুইটারে কাশ্মীরের দুই সাবেক মুখ্যমন্ত্রীকে মুক্তি দেয়ারও দাবি জানান তিনি।

রাহুল গান্ধী বলেন, ‘‘কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের গোপন স্থানে আটকে রাখা হয়েছে। এটা অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক। এ ধরনের সিদ্ধান্ত অদূরদর্শী ও বোকামিও, কারণ এখন ভারত সরকারের তৈরি করা শূণ্যতার সুযোগে জঙ্গিরা কাশ্মীরের নেতৃত্ব নেবে। গ্রেপ্তার নেতাদের দ্রুত মুক্তি দিতে হবে।’’

জম্মু-কাশ্মীর নিয়ে ভারত সরকারের একতরফা পদক্ষেপের পরদিনই এর কড়া সমালোচনা করলেন ভারতীয় কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধী।

এক টুইটে রাহুল লেখেন, ‘‘সংবিধান লঙ্ঘন করে, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের জেলে পুরে ও জম্মু-কাশ্মীরকে দ্বিখণ্ডিত করে জাতীয় সংহতিকে শক্তিশালী করা যায় না। শুধু কিছু জমির খণ্ড দেশকে গড়ে তোলেনি, দেশ গড়ে তুলেছেন দেশের নাগরিকরাই। প্রশাসনিক ক্ষমতার এ অপব্যবহার দেশের নিরাপত্তার পক্ষে বিপজ্জনক।”

এর আগে সোমবার (৫ আগস্ট) ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা, যা কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ বা বিশেষ মর্যাদা দেয় তা বিলোপ করার ঘোষণা দেয় বিজেপি সরকার। ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সোমবার সংসদে বিরোধীদের তুমুল বাধা ও বাক-বিতণ্ডার মধ্যে এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন।

বিশেষ মর্যাদার মাধ্যমে এতদিন কেন্দ্রীয় সরকারের নীতি বাস্তবায়নে কাশ্মীরের রাজ্য সভার অনুমোদন প্রয়োজন হতো। রাজ্যে জমি কেনা ও সরকারি চাকরি রাজ্যের বাইরের লোকদের জন্য নিষিদ্ধ ছিলো।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য