কাহারোল (দিনাজপুর) সংবাদাতাঃ দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলায় আসন্ন ঈদুল আযাহাকে সামনে রেখে উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে গরু, ছাগল, ভেড়া ও মহিষ মিলে ১৪ হাজার ৮ শত ৩৮ টি কোরবানীর পশু প্রস্তুত করেছেন খামারী মালিকেরা। যা অত্র উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে এসব পশু দেশের বিভিন্ন স্থানে রপ্তানী করা সম্ভব হবে।

এবার উপজেলার ৭ হাজার ৪০৩ টি পশু কোরবানীর জন্য জবাই করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করেছেন বলে উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা যায়। সেখানে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে উদ্বৃত্ত প্রস্তুত হয়েছে ৭ হাজার ৪৩৫ টি পশু। তবে গতবারের তুলনায় এবছর কিছুটা বেশি কোরবানী করা হবে বলে ধারণা করছেন উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ।

অত্র উপজেলার কাহারোল হাট ও ১৩ মাইল গড়েয়া হাট, জয়নন্দ হাটে কোরবানীর পশু বিক্রির ব্যবস্থা করেছেন উপজেলা প্রশাসন। উপজেলায় ছোট বড় মিলে গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়ার ৬৫ টি খামার রয়েছে। ষাড় গরু রয়েছে ৬ হাজার ৬৭৪ টি, বলদ গরু ৮৩০ টি, গাভী রয়েছে ১৩ শ ২৯ টি ও ছাগল ৫ হাজার ৮১৫টি, ভেড়া ১৯০ টি।

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা. মোঃ আব্দুস সালাম জানান, উপজেলায় ৩ শত ৪৫ টি স্থানে এবার কোরবানী পশু জবাই করার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। উপজেলার সর্ববৃহৎ কাহারোল হাট-বাজার সপ্তাহে শনিবারের দিন বড় ধরনের হাট জমে সেই হাটে ব্যাপক গরু, ছাগল, মহিষ, ভেড়া, হাঁস-মুরগী বিক্রি হয়ে থাকে পূর্বে থেকেই।

কাহারোল হাটে কোরবানী পশু ক্রয় করার জন্য ঢাকা, সিলেট, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, ভৈরব, নোয়াখালী, টাঙ্গাইল, চট্টগ্রাম সহ দেশের বিভিন্ন স্থান হতে ব্যবসায়ীরা এই হাটে আসে। এসব পশু ট্রাক যোগে নিয়ে যায় ব্যবসায়ীরা। উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার জানান, কোরবানির পশুর হাটে প্রাণিসম্পদ বিভাগ কর্তৃক অত্র উপজেলার প্রতি বড় হাট-বাজারের জন্য মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে।

মেডিকেল টিম গরু, ছাগলের হাটে গিয়ে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন এবং স্বাস্থ্য সম্মত গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ক্রয়ের জন্য ক্রেতা-বিক্রেতাদেরকে সচেতনতা বৃদ্ধি ও পরামর্শ দিয়ে আসছেন। কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে উপজেলার রসুলপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের খামার মালিক আব্দুল হালিম প্রায় ২৫টি গরু কোরবানী হাটে বিক্রয়ের জন্য প্রস্তুত করেছেন। এসব গরু আগামী শনিবারে কাহারোল হাটে বিক্রি করার জন্য নিয়ে আসবেন বলে তিনি জানান।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য