দিনাজপুর সংবাদাতাঃ দিনাজপুর বিজিবি সদস্যদের চোরাচালান ও মাদক বিরোধী একাধিক অভিযানে প্রায় ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা মূল্যের ভারতীয় কাপড়, বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্যসহ ৬ জনকে আটক করা হয়েছে।

দিনাজপুর বিজিবি সেক্টর সূত্রে প্রকাশ, আজ রোববার ভোর রাত থেকে বিজিবি সেক্টরের বিশেষ অভিযানে জেলার হাকিমপুর উপজেলার হিলি সীমান্ত এলাকার একাধিক স্থানে চোরাচালান ও মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এসময় বিজিবির অভিযানে হিলিস্থলবন্দরের সীমান্ত পিলার নং ৩৬২ এর সাব পিলার ৫ হতে সাড়ে ৩শ গজ বাংলাদেশের ভিতরে কয়েকজন চোরাচালানী মাথায় কাপড়ের পোটলা নিয়ে বাংলাদেশ সীমানায় প্রবেশ করে।

এসময় বিজিবির টহলদল ধাওয়া করে ২ জনকে আটক করলেও অন্যান্যরা পোটলা ফেলে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থল থেকে ১৭টি কাপড়ের পোটলা আটক করা হয়। উদ্ধারকৃত কাপড়ের পোটলা থেকে ১ হাজার ৬২ পিস ভারতীয় কাতান, বেনারশি, দেবদাস, কটকটি ও কিরনমালা শাড়ী উদ্ধার করা হয়।

এছাড়াও থান কাপড়, থ্রি-পিস ও অন্যান্য শিশু পোশাক উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত কাপড়ের মূল্য প্রায় ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। কাপড় পরিবহনের অভিযোগে ২ জনকে আটক করা হয়। আটক ২ জন হাকিমপুর উপজেলার বাসুদেবপুর গ্রামের ওয়ারেস আলীর পুত্র আব্দুর রহিম (৪০) ও একই এলাকার শহিদুল ইসলামের পুত্র সাজু মিয়া (৩০)।

এদিকে বিজিবি একই সময় হিলি সীমান্তের ফুটবল মাঠ, হিলি রেলওয়ে ষ্টেশন, ডাব বাগান, ঘাসুরিয়া, মংলা ও ডাঙ্গাপাড়া এলাকায় একাধিক অভিযান চালিয়ে ৩৭৮ বোতল ফেন্সিডিল, ভারতীয় বিভিন্ন ধরনের ফাস্টফুড, ইমিটেশন সামগ্রীসহ ৪ জনকে আটক করতে সক্ষম হয়।

আটক ব্যক্তিরা হলেন বিরামপুর উপজেলার ঘাটপাড় এলাকার ফয়েজুল ইসলামের পুত্র ফারুক (৩৫), দেব শর্মার পুত্র রাহুল শর্মা (৩২), জেতেন রায়ের পুত্র জেরিক রায় (৩০) ও শাহজাহান আলীর পুত্র শহিদুল ইসলাম (৪০)।

আটকদের আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় হাকিমপুর থানায় সোপর্দ করে বিজিবির পক্ষ থেকে পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ আটক ৬ জনকে আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য