সংবাদ সম্মেলনঃ ক্ষমতার দাপট এবং সন্ত্রাসী লেলিয়ে দিয়ে ৬৫ পরিবারের ২ শতাধিক মানুষের চলাচলের রাস্তা বন্ধ এবং মিথ্যা মামলা দায়ের করে অসহায় মানুষদের হয়রানী করছে আইনজীবি হানান্ন। ।

বৃহস্পতিবার সকালে দিনাজপুর প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেন বীলগঞ্জের নিজপাড়া ইউনিয়নের ঝাড়পাড়া এলাকার বাসিন্দা জয়ন্ত রায়সহ অন্যরা।

লিখিত অভিযোগে তারা বলেন, ভুক্তভুগীদের পক্ষে জয়ন্ত রায় সংবাদ সম্মেলনে লিখিতো বক্তবে বলেন, বীরগঞ্জ উপজেলার নিজপাড়া ইউনিয়নের নতুনহাট সংলগ্ন ঝাড়পাড়া গ্রামে প্রায় ৮০/৯০টি হিন্দু ও আদীবাসী গরিব শ্রমজীবি পরিবার বসবাস করে আসছে দীর্ঘ দিন ধরে।

তাদের পরিবারের লোকজন, স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা ও তাদের উপার্যনে ব্যবহ্যত ভ্যান, রিস্কা সহ প্রায় ১শত বছর ধরে যে রাস্তাটি দিয়ে তারা চলাচল করে ওই রাস্তাটি জনৈক ১ সচিবের ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে একই এলাকার মৃত আমজাদ আলীর পুত্র আব্দুল হান্নান উকিল গত ১৩ জুলাই রাস্তা কেটে ফেলে চলাচল বন্ধ করে দেয়।

তারা নিরুপায় হয়ে স্থানীয় প্রশাষন নিজপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম.এ খালেক সরকারকে অভিযোগ দিলে তিনি সরজমিনে এসে রাস্তা কাটার বন্ধের কথা বল্লে আব্দুল হান্নানের নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন লোক চেয়ারম্যানের উপর চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালি গালিগালাজ করে এবং মিথ্যা মামলা সহ বিভিন্ন হয়রানীর হুমকী দেয়। পরে এলাকাবাসীর চলাচলের অসুবিধা দেখে চেয়ারম্যান কাদা দিয়ে কিছুটা বেধে দেয়।

এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে, ২৩ জুলাই দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইয়ামিন হোসেন, বীরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ শাকিলা পারভীন, নিজপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম.এ খালেক সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মো. শামিম ফিরোজ আলম, নিজপাড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক রহমত আলী, সাবেক সাধারন সম্পাদক আবুল কাশেম মাস্টারকে সাথে নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি এলাকায় শান্তিপূর্ণ অবস্থান বজায় রাখার নিমিত্তে রাস্তাটি মেরামতের জন্য উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তাকে নির্দেশ প্রদান করেন। হান্নান ক্ষিপ্ত হয়ে জনৈক ১ সচিবের ক্ষমতার অপব্যবহার করে গত ২৯ জুলাই ভোরে আব্দুল মজিদ মাষ্টার বাবু, পিতা. মৃত আব্দুল হাকিম, আঃ হালিম, পিতা. মৃত আমজাদ আলী, আবু হানিফ, পিতা. আমজাদ হোসেন, আলম হোসেন, পিতা. ফয়েজ উদ্দিন, বাহারু, পিতা. নুরু মিয়া সহ ২০/২৫ জন সন্ত্রাসী সহ এসে পুনরায় চলাচলের রাস্তাটি কেটে ফেলে চলাচল বন্দ করে দেয়।

সংবাদ সম্মেলনের অভিযোগে তারা জানায়, আব্দুল হান্নান গরিব, হিন্দু নারীদের উপর অত্যাচার ও তার নারী কেলেংকারীর ঘটনার অভিযোগের বিচার চাওয়ায় আইনী ও ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে প্রতিবাদকারীদের লাঞ্চিত করে। তার মিথ্যা মামলা ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের ভয়ে এলাকার ৫/৬টি হিন্দু পরিবার ইতি মধ্যে ভারতে পালিয়ে যায়।

উল্লেক্ষ, উক্ত চলাচলের রাস্তার পাশের জমিটি রাজশাহী শহরের বাসিন্দা ব্যাংক কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম নামক ১ ব্যাক্তির। যিনি বহুল আলোচিতো হলমার্ক কেলেংকারীর ৩নং আসামী হয়ে দেশের বাইরে পলাতক রয়েছে। সাইফুল ইসলাম পলাতক থাকার সুযোগে আব্দুল হান্নান ঐ জমিগুলি ভোগদখল করে খাচ্ছে। তিনি ক্ষমতার অপব্যাবহার করে উকিলি দাপটে পুনরায় রাস্তাটি কেটে ফেলার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে আমাদের পক্ষে ন্যায় সংগত কথা বলার কারনে স্থানীয় প্রশাষন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, আমাদের বেশ কয়েকজন জনসাধারনের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানীর চেষ্টা চালাচ্ছে।

ভুক্ত ভুগী হিন্দু পরিবার গুলি, চলাচলের রাস্তাটি বহাল রাখার দাবীতে ও উকিলী বুদ্ধির আইনী হয়রানী বন্দের দাবী জানিয়ে ন্যায় বিচারের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ বিভিন্ন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেন। জয়ন্তের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মিলন চন্দ্র রায়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, হরিদাস রায়, দয়াল ও পঞ্চানন রায় ।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য