আরিফ উদ্দিন, গাইবান্ধাঃ গাইবান্ধায় মোটর সাইকেল চুরি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে দুমাসে দুজন সাংবাদিকের দুটিসহ ৫টি মোটর সাইকেল গায়েব হয়েছে। মঙ্গলবার একইদিনে দুটি মোটর সাইকেল চুরি যায়। এরমধ্যে জেলা প্রশাসক চত্বর থেকে একটি এবং সেটেলমেন্ট অফিস চত্বর থেকে অপর একটি মোটর সাইকেল চুরি যায়।

এছাড়াও জেলা শহর এবং জেলার বিভিন্ন স্থান থেকেও মোটর সাইকেল চুরির খবর পাওয়া যাচ্ছে। চুরি যাওয়া মোটর সাইকেল উদ্ধারে পুলিশের তৎপরতার অভাবে অন্যান্য স্থান থেকেও মোটর সাইকেল চুরি ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, ৩০ জুলাই মঙ্গলবার জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা আইন শৃংখলা মিটিং চলাকালিন সময়ে গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক আবেদুর রহমান স্বপনের জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের মূল গেটের কাছে রাখা কালো রংয়ের বাজাজ ১২৫ সিসি প্লাটিনা মোটর সাইকেলটি চুরি যায়।

এদিকে একই স্থান থেকে গত ২৬মে গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি দীপক কুমার পালের মোটর সাইকেলটি (বাজাজ ১০০ সিসি) চুরি যায়। দুটি চুরির ঘটনাই সাথে সাথে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট সকলকে অবহিত করা হয় এবং গাইবান্ধা সদর থানায় এজাহার করা হয়।

দ্বিতীয় মোটর সাইকেলটি চুরি যাওয়ার সময়ও জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা আইন শৃংখলা মিটিং চলছিল। একই স্থান থেকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সাধারণ শাখার কর্মকর্তা শাহীনুর রহমান মল্লিকের একটি মোটর সাইকেল চুরি যায়। এ ছাড়া গত মঙ্গলবার শহরের দক্ষিণ ধানঘড়া এলাকার আবু জাফর মো. জহির হাসানের ও সম্প্রতি শহরের ব্রিজ রোডের ঠিকাদার প্রদীপ সরকার বটুর মোটর সাইকেল চুরি যায়। চুরি যাওয়া এই মোটর সাইকেলগুলো আজও উদ্ধার হয়নি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, জেলা প্রশাসক অফিসের মূল গেটের সম্মুখে একটি সিসি ক্যামেরা বিদ্যমান থাকলেও রহস্যজনক কারণে সেই ক্যামেরায় সাংবাদিকদের মোটর সাইকেল দুটি চুরির সময়কার কোন সিসি ফুটেজ পাওয়া যায়নি। জেলা প্রশাসক অফিসের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইটি কর্মকর্তার গাফিলতির কারণেই এ ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এব্যাপারে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেও কোন সদুত্তর পাওয়া যায়নি। বরং বিষয়টি নিয়ে তিনি চরম অবহেলা প্রদর্শন করেন।

এদিকে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে গমনকারি দায়িত্বপালনরত দুজন সাংবাদিকের মোটর সাইকেল চুরি যাওয়ায় এবং এখন পর্যন্ত তা উদ্ধার না হওয়ায় গাইবান্ধা প্রেস ক্লাবের বিক্ষুব্ধ সাংবাদিকরা বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এক জরুরী সভায় মিলিত হন। সভায় এব্যাপারে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে মোটর সাইকেল উদ্ধারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি দাবি জানানো হয়। তদুপরি জেলা শহরের আইন শৃংখলা ও নিরাপত্তার স্বার্থে লাগানো নিম্নমানের সিসি ক্যামেরাগুলো অপসারণ করে অবিলম্বে নতুন সিসি ক্যামেরা স্থাপন এবং সিসি ক্যামেরাগুলোকে যথাযথ তত্ত্বাবধান করার জন্যও দাবি জানানো হয়।

গাইবান্ধা প্রেস ক্লাব সভাপতি কেএম রেজাউল হকের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন আবু জাফর সাবু, গোবিন্দলাল দাস, নুরুজ্জামান প্রধান, দীপক কুমার পাল, আবেদুর রহমান স্বপন, ইদ্রিসউজ্জামান মোনা, সিদ্দিক আলম দয়াল, রেজাউল হক মিতা, শাহাবুল শাহীন তোতা, আব্দুল মান্নান চৌধুরী, আরিফুল ইসলাম বাবু, কুদ্দুস আলম, রজতকান্তি বর্মন, খায়রুল ইসলাম, অলহাজ্ব মমতাজুল ইসলাম লিয়াকত, ফজলে রাব্বি মন্ডল, শেখ হুমায়ুন হক্কানী, শামসুজ্জোহা।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য