চীনের রাজধানী বেইজিং এর হালাল রেস্টুরেন্ট ও খাবারের দোকানগুলো থেকে আরবি ভাষা ও মুসলিম প্রতীক সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মুসলিমদেরকে চীনা সংস্কৃতির ধারায় নিয়ে আসার চেষ্টাতেই এ পদক্ষেপ।

সম্প্রতি বেইজিংয়ে হালাল পণ্য বিক্রি করা ১১টি রেস্টুরেন্ট ও দোকানের কর্মীরা এবং দোকানগুলো ঘুরে আসা রয়টার্স বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, কর্মকর্তারা তাদেরকে ইসলামের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছবি সরিয়ে নিতে বলেছে। এর মধ্যে আছে অর্ধচন্দ্র চিহ্ন এবং আরবিতে লেখা ‘হালাল’ শব্দটিও।

বেইজিং এর একটি নুডলসের দোকানের ম্যানেজার জানান, বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মীরা তার দোকানের প্রতীকে আরবিতে লেখা ‘হালাল’ শব্দটি ঢেকে ফেলতে বলেছে এবং ঢাকা হল কিনা সেটিও লক্ষ্য করেছে।

ওই ম্যানেজার বলেন, “তারা বলেছে এটি বিদেশি সংস্কৃতি। তোমার উচিত চীনা সংস্কৃতি আরো বেশি ব্যবহার করা।” নাম প্রকাশ না করে অন্য হালাল রেস্টুরেন্ট ও খাবারের দোকানগুলোর মালিক ও কর্মীরাও রয়টার্সকে একই কথা বলেছেন।

২০১৬ সাল থেকেই চীনে আরবি ভাষা ও ইসলামি ছবি বা প্রতীকবিরোধী প্রচার নতুন মাত্রা পেয়েছে। ‘মূল ধারার চীনা সংস্কৃতির’ আওতায় ধর্মগুলোকে নিয়ে আসাই এর উদ্দেশ্য। এ প্রচারাভিযানে চীনে মসজিদগুলোকে গম্বুজের বদলে চীনা-ধাঁচের প্যাগোডার আকার দেওয়ার কথাও বলা হয়েছে।

চীনে বাস করে দুই কোটি মুসলিম। দেশটিতে দাপ্তরিকভাবে প্রকাশ্যে ধর্মীয় স্বাধীনতার কথাও বলা হয়। কিন্তু চীন সরকার ভিন্ন ধর্মে বিশ্বাসীদের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টির আদর্শের ধারায় নিয়ে আসার চেষ্টা চালাচ্ছে। কেবল মুসলিমরাই নয় খ্রিস্টানদের ক্ষেত্রেও একইরকম পদক্ষেপ নিচ্ছে চীন।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য