মাসুদ রানা পলক, ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলায় জুয়া খেলার প্রতিবাদ করার কারণে জুয়ারুরা দুই ভাইকে মারপিট করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বিকেলে ওই উপজেলার নন্দুয়ার ইউনিয়নের সন্ধ্যারই সাতঘোরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

আহত মনজুর আলম (৪১) ও তার ছোট ভাই মুনসুর আলী (৩৮) নন্দুয়ার ইউনিয়নের সন্ধ্যারই সাতঘোরিয়া গ্রামের প্রয়াত আমির উদ্দীনের ছেলে।

বর্তমানে আহত দুই ভাই ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

চিকিৎসাধীন অবস্থায় আহত ছোট ভাই মুনসুর আলী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে প্রতিবেশি জাফরুল ও আলমের নেতৃত্বে আমার বাড়ির সামনেই দুটি ব্রেঞ্চ বসিয়ে জুয়া খেলা পরিচালনা করে আসছিল। এতে করে এলাকার যুব সমাজ জুয়া খেলার দিকে ধাবিত হচ্ছিল। এলাকার সচেতন মহল জুয়া খেলা বন্ধের প্রতিবাদ করলেও তারা কথা শোনেনি।

তিনি বলেন, রবিবার বিকেলে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সেই জুয়া খেলার ভিডিও চিত্র ও ছবি তুলে রাণীশংকৈল থানায় এসে পুলিশকে দেখানো হয়। এরপর থানা থেকে বাড়িতে ফিরে গেলে প্রতিবেশি জাফরুল ও আলমের নেতৃত্বে একদল জুয়ারু ধারালো ছোড়া ও লাঠিসোটা নিয়ে আমার বাড়িতে এসে হামলা চালায়। এসময় তারা আমাকে বেধরক লাঠিপেটা করে। এসময় বাঁধা দিতে আমার বড় ভাই মনজুর আলম এগিয়ে আসলে জুয়ারুরা তাকে ধারালো ছোড়া দিয়ে কুপিয়ে জখম করে এবং লাঠিপেটা করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে জুয়ারুর পালিয়ে যায়।

এরপর স্থানীয় লোকজন আহত দুই ভাইকে উদ্ধার করে রাণীশংকৈল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে মনজুর আলম ও মুনসুর আলীকে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ বিষয়ে রাণীশংকৈল থানার ওসি আব্দুল মান্নান বলেন, খবর পাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে এবং আহতদের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ অভিযোগ দেয়নি; অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে রাণীশংকৈল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছেন জাফরুল ও আলম। এ ঘটনা সম্পর্কে জাফরুলের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি কথা বলতে রাজি হননি।

মন্তব্য লিখুন (ফেসবুকে লগ-ইন থাকতে হবে)

মন্তব্য